Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Mon September 24 2018 ,

১৩ মণ সোনার কোনো কাগজ নেই আপন জুয়েলার্সের

Published:2017-05-18 13:22:41    
 
আপন জুয়েলার্সের বিভিন্ন শাখা থেকে জব্দ করা সাড়ে ১৩ মণ স্বর্ণালংকার ও ৪২৭ গ্রাম ডায়মন্ডের (হিরা) কোনো বৈধ কাগজপত্র দেখাতে পারেনি প্রতিষ্ঠানটি। 
 
শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছে।
 
শুল্ক গোয়েন্দা অধিদফতর গত কয়েকদিনে দু'দফায় অভিযান চালিয়ে বনানী ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামির পরিবারের মালিকানাধীন আপন জুয়েলার্সের ৫টি বিক্রয় কেন্দ্র বন্ধ করে দেয়। সেগুলো থেকে অবৈধ সন্দেহে এসব অবৈধ স্বর্ণ এবং হীরা উদ্ধার করা হয়।
 
এরপর বৈধ কাগজ দেখানো এবং জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মালিকপক্ষকে তলব করা  হয়। 
 
 
বনানীতে দুজন ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মামলায় প্রধান অভিযুক্ত সাফাত আহমেদের বাবা দিলদার আহমেদ এবং তার দুই ভাই আপন জুয়েলার্সের মালিক। তারা তিন ভাই তলবের কারণে গতকাল বুধবার শুল্ক অধিদফতরে গিয়েছিলেন।
 
তাদের বেশ কয়েক ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদের পর শুল্ক গোয়েন্দা অধিদপ্তরের প্রধান ড. মইনুল খান সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, তাদের অভিযানে উদ্ধার করা আড়াইশ কোটি টাকা মূল্যের ৪৯৮ কেজি স্বর্ণ এবং ৪২৭ গ্রাম হীরার ব্যাপারে মালিকপক্ষ কোনো বৈধ কাগজ দেখাতে পারেনি। এরপরও আরও নিশ্চিত হওয়ার জন্য এই মালিকদের বৈধ কাগজ দেখানোর জন্য ২৩ মে পর্যন্ত সময় দেয়া হয়েছে। সেদিন তারা বৈধতার প্রমাণ দিতে পারলে আটক স্বর্ণ ছাড়া পাবে। তা নাহলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে তিনি উল্লেখ করেছেন।
 
মইনুল খান আরো বলেন, ‘ওই জুয়েলার্সের মালিক জিজ্ঞাসাবাদে জানান কাগজবিহীন এসব স্বর্ণালংকারের মধ্যে কিছু আছে গ্রাহকের। যার পরিমাণ সর্বোচ্চ ১০ কেজি হতে পারে। তারা আজ কাগজপত্র দেখাতে পারেননি। তারা সময় চেয়েছেন। আমরা আগামী ২৩ মে সকাল ১১টা পর্যন্ত সময় দিয়েছি। ওইদিন সশরীরে এসে কাগজপত্র নিয়ে হাজির হতে হবে।’
 
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদ বলেন, ‘আমাদের এখানে কোনো অবৈধ জিনিসপত্র নেই। সব বৈধ জিনিস।’ তিনি আরো বলেন,‘তাৎক্ষণিকভাবে কেউ কখনো কাগজপত্র দেখাতে পারে? আমরা কাগজ দেখাব। 
 
গত ৬ মে বনানী থানায় বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রী ধর্ষণের মামলা করেন। ওই মামলার প্রধান আসামি দিলদারের ছেলে সাফাত আহমেদ।
 

আরও সংবাদ