Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Wed June 20 2018 ,

পূজার দিনে ঈদের চিঠি

Published:2013-10-10 22:15:48    

পূজা,
শরতের এমন কাশ ফুলের ধবল দিনে,
না শীত না গরম
তথা শরীরের সাথে মিতালী করা আবহাওয়ায়,
নিশ্চয় তুমি তোমার মায়ের
শিউলি ফুলের মালা বানানোর ব্যাস্ততায় ভালই আছ।

আজও কি তোমার মনে পড়ে!
শরতের এমনই দিনে,
তুমি আমায় নিমন্ত্রন করেছিলে!
আমার মনে আছে,
যখন তুমি সিঁদুর রাঙা ঠোট নাড়িয়ে,
মা দূর্গার মত আঁখি তুলে,
আমার দিকে চেয়ে বলেছিলে,
“আসবে আমার বাড়ি!
আমি তোমাকে মা দূর্গার প্রসাদ খওায়াব,
বিন্নী ধানের খই,
আরো কত কি?
আমার নিমন্ত্রন তুমি রাখবে!
আসবে আমার বাড়িতে?”

কে না রাখবে তোমার নিমন্ত্রন!
স্বয়ং দেবতা তোমার নিমন্ত্রনে আসবে!
আর আমি ত মানুষ।

তাই গেলাম তোমার পিতৃ ভুমির পিত্রালয়ে।
কিন্তু হায় নিয়তি!
তুমি কোন লাজে আমার দিকে ফিরেও তাকালেনা,
চেয়েও দেখলেনা কে এসেছে,
তোমার আহার পিছনে পড়ে গেল,
অনেকে তোমায় ডাকল তবুও তুমি একবারও ফিরে তাকালেনা।


কিন্তু আমি কি করলাম জান?
দেবী কে পাওয়ার সাধনা করলাম।
কে যেন বলেছে সাধনায় সিদ্ধি লাভ।
আর আমি ভাবলাম,
এ নিমন্ত্রন আজকের না,
অন্য দিনের।

আমার সাধনা সিদ্ধি লাভ করেছিল একদিন।
কোন এক শরতের কাশ ফুলের ধবল দিনে।

এরপর কত হেমন্ত,
কত বসন্ত এল!
কিন্তু সেই কাশ ফুলের ধবল দিন,
না শীত না গরমের আবহাওয়া,
মা দূর্গার আগমনে আনন্দ মাখা ঢলের বাজনা,
আর এলোনা আমার জীবনে।।

এখন আমার জীবনে আসে,
শীতের সেই কনকনে ঠান্ডা,
যা ফুরাতে চায়না,
মাথার উপর এখন প্রখর রৌদ্রের গরম আবহাওয়া,
দূর্গা মায়ের বিসর্জনে ঢলের করুন বাজনা,
যা শুনে সাবাই কাঁদে।

হয়তবা তুমি আজ
শুধু দূর্গা মায়ের আগমনী আনন্দ মাখা সুর শুনতে পাও,
কিন্তু আমি যে বিদায়ের করুন বাজনা শুনতে পাই।
তোমার চারিদিকে আজ লোকারণ্য,
আমার চারিদিকে শুধু অসীম শুন্যতা।

বিদায়ান্তে আশীর্বাদ করি,
যেন তোমার কর্ণকুহুরে আগমনীর সুর আসে,
আর বিদায়ের সুর তোমার কানে যেন কখনও না বাজে।

ইতি
তোমার ঈদ


-এ কে কাব্য
সাব ইডিটর,
বাংলাসংবাদ২৪.কম

আরও সংবাদ