Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Sun August 19 2018 ,

আজ পবিত্র ঈদুল আযহা

Published:2013-10-16 06:13:19    

ঢাকা: ঈদ মোবারক। ঈদ মোবারক। ঈদ মোবারক। আজ বুধবার ১০ জিলহজ। পবিত্র ঈদুল আযহা।

আল্লাহর প্রতি আনুগত্য ও ত্যাগের মহিমায় ভাস্বর ঈদুল আজহা মুসলমানদের অন্যতম বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব। সাধারণভাবে এটি কোরবানির ঈদ হিসেবে পরিচিত। এই দিনে ঈদের নামাজ শেষে সামর্থ্যবান মুসলমানরা উট, দুম্বা, গরু, মহিষ, ছাগল ইত্যাদি পশু কোরবানি দেন। কোরবানির পশুর গোশত তিন ভাগ করে এক ভাগ আত্মীয়স্বজনকে, আরেক ভাগ গরিবদের মধ্যে বণ্টন ও বাকি এক ভাগ নিজেরা খাওয়া সুন্নত।

৯ জিলহজ ফজরের নামাজ থেকে ১৩ জিলহজ আসরের নামাজ পর্যন্ত প্রত্যেক ফরজ নামাজের পর তাকবির উচ্চারণ করা জরুরি। ‘আল্লাহু আকবার আল্লাহু আকবার, লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু, আল্লাহু আকবার ওয়াল্লাহু আকবার, ওয়ালিল্লাহিল হামদ।’ ঈদুল আযহার দুই রাকাত নামাজ জামাতে আদায় করা ওয়াজিব।

ঈদুল আজহা মুসলিম জাতির পিতা হজরত ইবরাহিম আ. ও তার পুত্র হজরত ইসমাইল আ.-এর সঙ্গে সম্পর্কিত।

আজ থেকে প্রায় পাঁচ হাজার বছর আগের ঘটনা। ৮৫ বছর বয়সে আল্লাহ হজরত ইবরাহিম আ.-কে সন্তান দান করলেন। আবার আল্লাহর পক্ষ থেকে সে সন্তানকেই কোরবানি করার নির্দেশ এলো স্বপ্নযোগে। পরীক্ষায় পিতা-পুত্র দুজনেই উত্তীর্ণ হলেন। একজন নিজ পুত্রকে কোরবানি করার জন্য, আরেকজন নিজে কোরবানি হওয়ার জন্য মাথা নুয়ে দিয়ে আল্লাহর নির্দেশ পালনের চরম পরাকাষ্ঠা প্রদর্শন করলেন।

হজরত ইবরাহিম আ. স্বপ্নে আদিষ্ট হয়ে পুত্র ইসমাইলকে আল্লাহর উদ্দেশে কোরবানি করতে গিয়েছিলেন। মহান আল্লাহ হজরত ইব্রাহিমের (আ.) এই আত্মত্যাগের মানসিকতাকে কবুল করে নিলেন এবং অপার মহিমায় হজরত ইসমাইলের (আ.) পরিবর্তে একটি দুম্বা কোরবানির নজির প্রতিষ্ঠিত হয়ে যায়। আসলে আল্লাহর পক্ষ থেকে এই আদেশ ছিল ইবরাহিম আ.-এর জন্য পরীক্ষা।

সেই ঐতিহাসিক ঘটনার স্মৃতি ধারণ করেই হযরত ইবরাহিম আ.-এর সুন্নত হিসেবে পশু জবাইয়ের মধ্য দিয়ে কোরবানির বিধান এসেছে ইসলামি শরিয়তে। ইসলামি শরিয়তে সামর্থ্যবানদের জন্য পশু কোরবানি করা ওয়াজিব। আল্লাহর উদ্দেশে কোরবানি করার পরম আনন্দ থেকেই পালিত হয় ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ, যা বকরা ঈদ নামেও বহুল পরিচিত। ধর্মের রীতি অনুযায়ী জিলহজ মাসের ১০, ১১ ও ১২ তারিখের যে কোনো দিন কোরবানি করা যায়। তবে রাসুলুল্লাহ (সা.) ১০ জিলহজ পবিত্র ঈদুল আজহার দিন কোরবানি করাকেই উত্তম ঘোষণা করেছেন।

ঈদ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি এ্যাডভোকেট আব্দুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়া ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ দেশবাসীর উদ্দেশ্যে শুভেচ্ছাবাণী দিয়েছেন। বাণীতে তারা দেশবাসীর সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করেন।


বাংলাসংবাদ২৪/আর

আরও সংবাদ