Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Wed June 20 2018 ,

সাহিত্য ও চলচ্চিত্রে জহির রায়হান

Published:2013-11-06 19:57:54    



এম এন চৌধুরী
বাংলাদেশের সাহিত্য ও চলচ্চিত্রের প্রবাদপুরুষ, কথাশিল্পী ও চলচ্চিত্র নির্মাতা জহির রায়হানের ৭২তম জন্মবার্ষিকী উতযাপন হলো গত ৫ আগস্ট। ১৯৩৬ সালের এই দিনে ফেনীর মজুপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাল্যকাল কেটেছে কলকাতায়। দেশবিভাগের পর ১৯৪৭ সালে বাবার সঙ্গে ঢাকায় চলে আসনে। কৃতিত্বের সঙ্গে প্রথম বিভাগে ম্যাট্রিক পাস করেন ১৯৫০ সালে নিজ গ্রামের স্কুল থেকে। এরপর ঢাকা কলেজ এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে লেখাপড়া করেন।

১৯৫২ সালে রাষ্ট্র ভাষা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশ নেবার জন্য তাকে বড় ভাই শহীদুল্লা কায়সারসহ কারাবরণ করতে হয়। ১৯৫৫ সালে একুশে ফেব্রুয়ারি পালন উপলক্ষে আবার তিনি কারাবরণ করেন। ১৯৫৭ সালের মাঝামাঝি আবার তিন মাস কারাবরণ করেন রাজনৈতিক কারণে। এরপর ১৯৫৮ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কৃতিত্বের সঙ্গে বাংলায় এমএ পাস করেন।

চলচ্চিত্রে যোগ দেন এ জে কারদারের সহকারী হিসেবে জাগো হুয়া সাবেরা ছবিতে ১৯৫৭ সালে। এরপর কাজ করেন কখনো আসেনি ছবিতে ১৯৬০ সালে। ১৯৫৯-৬০ সালে সচিত্র সন্ধানীতে ধারাবাহিকভাবে প্রকাশের পর ততকালীন পাকিস্তানের প্রথম রঙিন ছবি সঙ্গম নির্মাণ করেন ১৯৬৩ সালে। তিনি প্রথম সিনেমাস্কোপ ছবি বাহানা নির্মাণ করেন ১৯৬৫ সালে। জহির রায়হান ‘হাজার বছর ধরে’ উপন্যাসটি লিখে সাহিত্যে আদমজী পুরস্কার পান ১৯৬৫ সালে।

তার প্রথম একটি কবিতা ‘ওদের জানিয়ে দাও’ প্রকাশিত হয় ১৯৪৯ সালে কলকাতার ‘নতুন সাহিত্য’ পত্রিকায়। এরপর ছোটগল্প ইত্তেহাদ, ইনসাফ, খাপছাড়া, যাত্রিক ইত্যাদি পত্রিকায় ছাপা হয়। তার প্রথম গল্প সঙ্কলন ‘সূর্য গ্রহণ’ প্রকাশিত হয় ১৯৫৫ সালে। তিনি ১৯৫৬ সালে ‘প্রবাহ’ নামে একটি পত্রিকা সম্পাদনা করেন। তার ‘শেষ বিকেলের মেয়ে’ প্রথম উপন্যাস পুস্তকাকারে ছাপা হয়। জহির রায়হান প্রথম বিবাহ করেন চিত্রাভিনেত্রী সুমিতাকে ১৯৬১ সালে।

১৯৭২ সালের ৩০ জানুয়ারি বড় ভাই শহীদুল্লা কায়সারের খোঁজে ঢাকার মিরপুর গিয়ে নিখোঁজ হন।

জহির রায়হানের গ্রন্থপঞ্জি
সূর্য গ্রহণ (ইনল্যান্ড প্রেস ১৯৫৬), শেষ বিকেলের মেয়ে (সন্ধানী প্রকাশনী ১৯৬০), হাজার বছর ধরে (সন্ধানী প্রকাশনী ১৯৬৪), বরফ গলা নদী (সন্ধানী প্রকাশনী ১৯৬৮), আরেক ফাল্গুন (সন্ধানী প্রকাশনী ১৯৬৯), আর কত দিন (সন্ধানী প্রকাশনী ১৯৭০)।

জহির রায়হানের চিত্রপঞ্জি
পরিচালনা : কখনো আসেনি (১৯৬১), সোনার কাজল (১৯৬২), কাঁচের দেয়াল (১৯৬৩), সঙ্গম (১৯৬৪), বাহানা (১৯৬৫), বেহুলা (১৯৬৬), আনোয়ারা (১৯৬৭), জীবন থেকে নেয়া (১৯৭০), জ্বলতে সুরজকে নীচে (বাংলাদেশে মুক্তি পায়নি) এবং লেট দেয়ার বি লাইট (অসমাপ্ত)।
প্রামাণ্যচিত্র : লিবারেশন ফাইটার্স (১৯৭১), ইনোসেন্ট মিলিয়নস (১৯৭১), স্টপ জেনোসাইড (১৯৭১) ও বার্থ অফ নেশন (১৯৭১)।
প্রযোজনা : জুলেখা (১৯৬৭), দুই-ভাই (১৯৬৮), সংসার (১৯৬৮), সুয়োরাণী দুয়োরাণী (১৯৬৮), কুঁচবরণ কন্যা (১৯৬৮), মনের মত বউ (১৯৬৯), শেষ পর্যন্ত (১৯৬৯), প্রতিশোধ (১৯৭২)।

আরও সংবাদ