Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Thu September 20 2018 ,

ঝালকাঠি-১ আসনের মনোনয়ন লড়াই : বিএনপিতে ২, আ’লীগে ৩

Published:2013-11-09 10:32:00    

ঝালকাঠি প্রতিনিধি: জমে উঠেছে ঝালকাঠি-১ (রাজাপুর-কাঠালিয়া) আসনের মনোনয়ন লড়াই। নির্বাচন নিয়ে কিছুটা অনিশ্চয়তা থাকলেও সেটাকে খুব একটা আমলে নিচ্ছেন না মনোনয়ন প্রত্যাশিরা।

বিএনপি এবং আ’লীগ উভয় দলের মনোনয়ন প্রত্যাশিরাই একদিকে নির্বাচনী গনসংযোগ করছেন অন্যদিকে মনোনয়ন বাগাতে দলের হাই কমান্ডে লবিং অব্যহত রাখছেন। মনোনয়ন প্রত্যাশিদের শুভেচ্ছা পোষ্টারে ছেয়ে গেছে রাজাপুর কাঠালিয়ার প্রত্যন্ত অঞ্চল।

ঝালকাঠি-১ আসনে বড় দুই দলে ৯ জন মনোনয়ন প্রত্যাশি থাকলেও এই ৯ জনের মধ্যে মনোনয়ন লড়াইয়ে মূল প্রতিদ্বন্ধীতায় থাকবেন ৫ জন।

বিএনপিতে ৪ জন মনোনয়ন প্রত্যাশির মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্ধীতায় থাকবেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও জেলা বিএনপির সভাপতি ব্যারিষ্টার শাহজাহান ওমর এবং বিএনপির প্রভাবশালী পেশাজীবী সংগঠন সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ যুক্তরাজ্য শাখার যুগ্ম আহবায়ক ইঞ্জিনিয়ার এ,কে,এম রেজাউল করিম।

এছাড়া এই আসনে বিএনপির আরো ২ জন মনোনয়ন প্রত্যাশি থাকলেও তারা মূল আলোচনায় নেই। এদিকে সম্প্রতি দুদক শাহজাহান ওমরের ১০০ কোটি টাকার জ্ঞাত আয় বহিভূর্ত সম্পদের হিসেব চাওয়ায় শাহজাহান ওমর নির্বাচন করতে পারবেন কিনা এ নিয়ে র্নিবাচনী এলাকার নেতাকর্মীদের মধ্যে সংশয় দেখা দিয়েছে। এই আসনের ভোটাররা সহ নেতা কর্মীরা মনে করেন দূর্নীতির মামলার কারনে গত নির্বাচনে অংশ নিতে না পারা, বর্তমানে আবারো সেই দূর্নীতির অভিযোগ ওঠা, বিএনপির ২ জন প্রভাবশালী কেন্দ্রীয় নিবাহি কমিটির সদস্য এবং দলের হাই কমান্ডের প্রিয়ভাজন একজন প্রভাবশালী  আইনজীবী সহ জেলা বিএনপির গুরুত্বপূর্ন একটি অংশের অব্যহত বিরোধিতা শাহজাহান ওমরের দলীয় মনোনয়নে বড় ধরনের বাঁধা হয়ে দাড়াতে পারে।

সেক্ষেত্রে এই সুযোগ গ্রহন করতে পারেন রেজাউল করিম। বিগত দিনে এলাকায় ব্যাপক সেবামুলক কাজ করায় এবং দলের হাই কমান্ডের সাথে সু সম্পর্ক থাকায় রেজাউল করিম মনোনয়ন পেয়ে গেলেও অবাক হবার কিছু থাকবেনা বলে মনে করছেন এই এলাকার ভোটাররা।

অন্যদিকে আ’লীগে ৫ জন মনোনয়ন প্রত্যাশির মধ্যে এখন মূল আলোচনায় রয়েছেন বর্তমান এমপি বিএইচ হারুন, জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক এ্যাডভোকেট খান সাইফুল্লাহ পনির ও আ’লীগের কেন্দ্রীয় নেতা মনিরুজ্জামান মনির। এখানে আরো ২ জন মনোনয়ন প্রত্যাশি থাকলেও তারা মূল আলোচনায় নেই।

এ আসনের আ’লীগের অনেক নেতাকর্মীই মনে করছেন, বিভিন্ন কারনে এবার বিএইচ হারুনকে মনোনয়ন দেয়া নাও হতে পারে। সেক্ষেত্রে তারা খান সাইফুল্লাহ পনির ও মনিরুজ্জানের মনিরের মধ্যেই যে কেউ দলীয় মনোনয়ন পাবেন বলে মনে করছেন।

এই দুই মনোনয়ন প্রত্যাশি এলাকায় ব্যাপক গনসংযোগ সহ রাজনৈতিক তৎপরতা অব্যহত রেখেছেন।


বাংলাসংবাদ২৪/আজমীর/এমএস

আরও সংবাদ