Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Mon July 16 2018 ,

বাংলাদেশের পর্যটন শিল্প

Published:2013-11-16 11:07:29    

লিংকন: বাংলাদেশের হাজার বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় অর্জন আমাদের স্বাধীনতা। মুক্তিকামী বীর বাঙালী বুকের তাজা রক্ত দিয়ে অর্জন করেছে লাল-সবুজের একটি প্রিয় পতাকা। তাই তো বাঙালীকে বলা হয় বীরের জাতি।

স্বাধীন হওয়ার পর হাজার হাজার বিদেশি পর্যটক এদেশে এসেছে। বাংলাদেশ এবং বীরের জাতিকে স্বচক্ষে অবলোকন করতে। পর্যটকরা বিমোহিত হয়েছেন আমাদের দেশের অসংখ্য প্রাকৃতিক আকর্ষণ এবং অবারিত সৌন্দর্য দেখে। পর্যটকদের  আকর্ষণ করার মতো অনেক সম্পদই রয়েছে আমাদের এই দেশে।

বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারের অবস্থান এই দেশে। রয়েছে নৈসর্গিক সৌন্দর্যে ভরা প্রবাল দীপ সেন্টমার্টিন। বিশ্বের অন্যতম ম্যানগ্রোভ বন সুন্দর বনের নয়ারাভিরাম প্রাকৃতির দৃশ্য তা আবার সমুদ্র বেষ্টিত। রয়েছে মোহনীয় রুপের সাগরকন্যা ‘কুয়াকাটা’। প্রায়আড়াই হাজার বছরের সভ্যতার নিদর্শন বগুড়ার মহাস্থানগড়, কুমিল্লার ময়নামতির শালবন বিহার, পাহাড়পুর বোদ্ধবিহারের মতো ঐতিহ্যবাহী স্থান। এছাড়া ঢাকা ও ঢাকার বাইরে রয়েছে মোগল এবং সুলতানি আমলের অনেক ঐতিহাসিক নিদর্শন। আরো আছে রাঙামাটির ঝুলন্ত সেতু, সিলেটের জাপলং ও চা বাগান, কাপ্তাই লেক সহ অসংখ্য সৌন্দর্যের লীলা ভূমি।

আমাদের দেশের পর্যটন শিল্প বিকাশের সম্ভাবনা অনেক। তবে দু:খের বিষয় স্বধীনতার  বিয়াল্লিশ বছরে ও আমাদের এ শিল্প অনেক দূর যেতে পারেনি । ১৯৭২ সালে প্রেসিডেন্টসিয়াল অর্ডার নং-১৪২ এর মাধ্যমে ‘বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন’ নামে একটি পর্যটন শিল্প উন্নয়ন প্রতিষ্ঠান গঠিত হলেও এখন পর্যন্ত গড়ে ওঠেনি পর্যটন বান্ধব কোন জোরালো অবকাঠামো।

বিদেশী পর্যটকদের আকৃষ্ট করার জন্য নেয়া হয়নি এমন কোন সৃদুর প্রসারী সৃজনশীল কর্মসূচী। কতৃপক্ষ এই শিল্প বিকাশে ইতিবাচক পদক্ষেপ গ্রহণ করলে দেশি-বিদশি পর্যটকদের কাছে আকর্ষণের কেন্দ্র বিন্দু হতে পারে আমাদের এই দেশ। সকলের আন্তরিক প্রচেষ্টা ও সার্বিক সহযোগিতায় আরো বিকশিত হবে আমাদের এই পর্যটন খাত। এই প্রত্যাশা আমাদের সকলের।

বাংলাসংবাদ২৪/লিংকন/বিএইচ
 

আরও সংবাদ