Widget by:Baiozid khan
  • Advertisement

কিশোরগঞ্জে সরিষার আবাদ : হলুদে ঢাকা বিস্তীর্ণ মাঠ

Published:2014-01-21 17:44:02    

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় এখন বিস্তীর্ণ মাঠ যেন ছেয়ে আছে সরিষার হলুদ গালিচায়। এখন প্রতিটি সরিষা ক্ষেতেই গাছজুড়ে ফুটে আছে জমকালো উজ্জল হলুদ ফুল। ওপর থেকে তাকালে সরিষার ফুলের জন্যে জমির মাটির দেখা পাওয়াটাও দুষ্কর হয়ে পড়ে।

যেসব এলাকায় সরিষার আবাদ হয়েছে সেখানে এখন পুরো প্রকৃতিই যেন হলুদ আভায় উদ্ভাসিত হয়ে আছে। সে এক মনোমুগ্ধকর দৃশ্যপট। সব উপজেলাতেই সরিষার আবাদ হয়ে থাকে। তবে ভৈরব এবং তাড়াইলে সর্বাধিক পরিমাণ সরিষার আবাদ হয় বলে জানা গেছে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক নির্মল কুমার সাহা জানান, এবারের ২০১৩-১৪ রবি মৌসুমে কিশোরগঞ্জে ৬ হাজার ৫০৮ হেক্টর জমিতে সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। আর আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৭ হাজার ৮১০ টন সরিষা। তিনি বলেন, স্বল্প জীবনকালের ধানের নতুন নতুন জাত উদ্ভাবনের কারণে এখন দেশে শস্যবিন্যাসে নানা ইতিবাচক পরিবর্তন আসছে। বিশেষ করে এবার থেকে জেলায় স্বল্প জীবনকালের 'বীনা-৭' এবং 'নেরিকা মিউট্যান্ট' জাতের ধান আবাদের প্রচলন শুরু হয়েছে। এতদিন যেসব আমান জমির ধান কাটার পর জমি পতিত থাকতো, সেসব জমিতে স্বল্প জীবনকালের ধান আগাম কেটে সরিষার আবাদ করা সম্ভব। কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে যেন তারা এসব স্বল্প জীবনকালের ধানের আবাদ করেন। এসব ধানের ফলনও বেশি। ফলে এসব ধান আবাদের প্রচলন বৃদ্ধি পেলে ধান কাটার পর সরিষার আবাদও বৃদ্ধি পাবে। আর এখন সারা জেলায় সাড়ে ৬ হাজার হেক্টর জমিতে সরিষার আবাদ হলেও, স্বল্প জীবনকালের ধানের আবাদ বৃদ্ধি পেলে আগামীতে জেলায় ১০ হাজার হেক্টর জমিতে সরিষার আবাদ হতে পারে বলে নির্মল সাহা ধারণা দেন।

উচ্চ ফলনশীল 'বীনা-৪' জাতের সরিষার আবাদ করলে একরে ২৪ মণ সরিষা উৎপন্ন হতে পারে এবং কৃষকরা ৯ হাজার টাকা মণ দরে সরিষা বিক্রি করে অধিক লাভবান হতে পারবেন বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

এক সময় কি ধনী কি গরিব, ভোজ্য তেল বলতেই সরিষার তেল ব্যবহার করত। তখন প্রচুর সরিষার আবাদও হতো। কিন্তু কালক্রমে সয়াবিন তেলের প্রচলন হওয়ায় এবং জনসংখ্যা বৃদ্ধির কারণে খাদ্যশস্যের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় সরিষার আবাদ মাত্রাতিরিক্ত হারে হরাস পেয়েছে। সরিষার জমিগুলো গ্রাস করেছে ধান। তবে স্বল্প জীবনকালের ধান আবাদের প্রচলন বাড়লে অতিরিক্ত ফসল হিসেবে আবারও সরিষার আবাদ বৃদ্ধি পেতে পারে বলে সংশি¬ষ্টদের ধারণা।

বাংলাসংবাদ২৪/পলাশ/ইএফ