Widget by:Baiozid khan
  • Advertisement

মুক্তিযোদ্ধা আফছারের জীবন সংগ্রাম থেমে নেই!

Published:2014-03-16 20:40:16    

রাজশাহী প্রতিনিধি: হাটে হাটে ঘুরে রাস্তার উপরে মাটিতেই সেলুনের কাজ করতেন তিনি। অভাবের সংসারে দু’মুঠো ভাতের আশায় রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার বিভিন্ন বাজারে হাটের দিনে চুল-দাড়ি কাটতেন আফসার আলী।

বয়স তখন ২৮/৩০ বছর। মুক্তিযুদ্ধের ডাক এলো। সেদিন সকল অভাব ভুলে গিয়ে দেশরক্ষায় ঝাঁপিয়ে পড়লেন আফসার আলী। তিনি উপজেলার গোয়ালকান্দি ইউনিয়নের তেলীপুকুর গ্রামের মৃত ইউসুফ আলী বাগের পুত্র।

১৯৭১ সালের ১১আগষ্ট হতে ১৬৮ নম্বর এফএফ পার্টি এবং ১০৪ নম্বর টিমে মুক্তিবাহিনীর সদস্য হিসেবে পাক-সেনাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছেন আফসার বাগ (৭১)। জীবন সংগ্রামের নির্মম কষাঘাতে জর্জরিত আফসার এখনো সেলুনের কাজ করছেন। গাঙ্গোপাড়া বাজারের একটি ভাড়া করা কাঠের ঢোপে আজও তার চুল কাটা কাঁচির ঝনঝনানি শব্দ শুনা যায়।

হামিরকুৎসা হাটে এক সময় সারের দোকান ছিল তার। অর্থের অভাবে সার ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে পারেননি বেশী দিন। আবারও শুরু করেন সেলুন ব্যবসা। সুদীর্ঘ ৫০ বছর থেকে এই পেশায় জড়িত থেকেও ভাগ্যের তেমন একটা পরিবর্তন আসেনি বীর মুক্তিযোদ্ধা আফসারের।

তার তিন ছেলে ও দুই মেয়ে। মুক্তিযোদ্ধা ভাতা ও সেলুনের রোজগার দিয়েই কোন রকম চলছে সংসার জীবণ। আফছার আলী এ প্রতিবেদক কে দূঃখ প্রকাশ করে বলেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ সন্তান হিসেবে মুক্তিযোদ্ধাদের যে মাসিক ভাতা প্রদান করা হয় তা দিয়ে বর্তমান বাজার মূল্যে একজন মুক্তিযোদ্ধার এক মাস তো দুরের কথা ৮দিনও ডালভাতে সংসার চালানো দায়।

সামান্য ভাতা দিয়ে সংসার তেমন চলেনা। মুক্তিযুদ্ধের সেইসব দিনগুলির কথা অশ্রু নয়নে বলতে গিয়ে বার বার নির্বাক হয়ে যাচ্ছিলেন আফসার আলী বাগ। তিনি বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট নুন্যতম একটি পরিবার চলতে পারে এমন ভাতা নির্ধারন করার জন্য আকুল আবেদন জানান। তার জেলা ভিত্তিক আইডি নং ১৬১৯ এবং মুক্তিযোদ্ধার ক্রম ২১৫৬৬।


বাংলাসংবাদ২৪/নাজিম/মাক্কী

আরও সংবাদ