Widget by:Baiozid khan
  • Advertisement

শেখ হাসিনার আন্তরিকতার জন্যই মুক্তিযোদ্ধাদের এখন ভিক্ষা করতে হয়না

Published:2014-03-17 19:23:28    

ঝালকাঠি প্রতিনিধি: বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিকতার কারনেই মুক্তযোদ্ধাদের এখন আর ভিক্ষা করতে হয়না। এমন মন্তব্য করেছেন যুদ্ধকালিন কমান্ডার মফিজ।

তিনি বলেন, ইতিপূর্বে বিএনপি ও জাতীয় পার্টির সরকার আমরা দেখেছি কিন্তু মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য তাদের নিঃস্বার্থ ভাবে কাজ করতে দেখিনি।

আজকে মুক্তিযোদ্ধারা রাষ্ট্রীয় তহবিল থেকে ৫ হাজার টাকা অনুদান পাচ্ছেন। যা দিয়ে একজন অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধা ডাল ভাত খেয়ে থাকতে পারছে। এ জগতের পাশাপাশি মৃত্যুর পরেও রাষ্ট্রীয় সম্মান পাচ্ছেন তারা।
   
একজন মুক্তিযোদ্ধা ও বরিশালের যুদ্ধকালীন কমান্ডার হিসেবে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে এজন্য জানাই সকল মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে লাল গোলাপ শুভেচ্ছা।

ঝালকাঠি-বরিশাল সড়কের ষাটপাকীয়া চত্তরে যার আন্তরিক উদ্যোগের জন্যই গড়ে উঠেছে মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিসৌধ। তিনি হলেন মুক্তিযোদ্ধা হাজী মো. মফিজ উদ্দিন। বাংলাদেশের প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনাকে একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে কিভাবে মূল্যায়ন করেন এমন প্রশ্নের উত্তরে মফিজ উদ্দিন এসব কথা বলেন।
    
তিনি জানান, আমিই প্রথম মুক্তিযুদ্ধ চলাকালিন পাকসেনাদের সাথে দক্ষিনাঞ্চলের সবচেয়ে বড় এবং সম্মুখ যুদ্ধের ঘটনাস্থল চাচৈর রনাঙ্গনে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্বরনে ষাটপাকিয়ায় একটি স্মৃতিসৌধ নির্মানের উদ্যোগ নেই। আমার সেই আশা ও স্বপ্নকে বাস্তবে রুপান্তরিত করেছে ঝালকাঠির সন্তান যিনি বর্তমানে শিল্পমন্ত্রী আলহজ্জ আমির হোসেন আমু। তারই নির্দেশে এখানে সড়ক বিভাগের অর্থায়নে এ স্মৃতিসৌধটি গড়ে উঠেছে।
    
আমি প্রবাসে থাকাকালীন শ্রমের দ্বারা অর্জিত অর্থ দিয়ে বর্তমানে এ সৃতিসৌধটির রক্ষনা বেক্ষন করছি। এছাড়াও স্মৃতিসৌধের পাশে সরকারি পরিত্যাক্ত জমিতে একটি বঙ্গবন্ধু শিশু পার্ক ও উম্মুক্ত কবর স্থান করার স্বপ্ন রয়েছে। এ জন্য সরকারী পৃষ্টপোষকতা ও সাহয্য প্রয়োজন।

বাংলাসংবাদ২৪/আজমীর/মাক্কী

আরও সংবাদ