Widget by:Baiozid khan
  • Advertisement

এবার ছাগল দিয়ে তৈরী হল গাড়ি

Published:2014-03-17 20:09:43    

যশোর প্রতিনিধি: যশোরের চৌগাছার এক স্কুল শিক্ষক বাড়িতে পালনকারী ছাগল দিয়ে এক অভিনব গাড়ি (ছাগলের গাড়ি) তৈরী করেছেন। অবিশ্বাস্য হলেও সত্য এই ব্যাতিক্রম ধর্মী পরিবেশ বান্ধব ও দৃষ্টি নন্দন অভিনব কায়দায় তৈরী করা গাড়ি সকলের নজর কেড়েছে।

বাড়িতে পোষা প্রানী এই ছাগলটি শিক্ষকের একমাত্র কন্যা সন্তানকে বিদ্যালয়ে নিয়ে যায় এবং আবার বাড়িতে ফিরে আসে। অসাধ্যকে সাধ্য করা সামাউল স্যারের বাড়িতে ছাগলের গাড়ি দেখতে প্রতিদিনই দর্শনার্থীরা ভীড় করছেন।
 
জানা গেছে, উপজেলার নারায়নপুর গ্রামের স্কুল শিক্ষক সামাউল ইসলাম। লেখাপড়া শেষ করে তিনি শিক্ষকতা পেশা বেছে নেয়। তিনি নারায়নপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। গত দু’বছর আগে বলা চলে সখের বশত বাড়িতে পোষার জন্য একটি ছাগল কেনে। অতি অল্প দিনে ছাগলটি বাড়ির সকলের কাছে প্রিয় হয়ে ওঠে। প্রিয় ছাগলটিকে বাড়ির সবাই টম বলে ডাকেন।

অবোলা এই পশুটির চলাফেরা অন্য যে কোন পশুর থেকে ব্যতিক্রম দেখতে পেয়ে শিক্ষক সামাউল ছাগল দিয়ে কিছু একটা করার চিন্তা করেন। যেমন ভাবনা তেমন কাজ। কিছু দিনের মধ্যে ওই শিক্ষকের মাথায় আসে ছাগল দিয়ে গাড়ি তৈরী করা সম্ভব। শুরু করেন গাড়ি তৈরীর কাজ এবং ছাগলকে সে ভাবে প্রশিক্ষন দেয়া। গাড়ি তৈরীর জন্য তিনি কাঁঠ, বাঁশ, সুতা, পলেথিন ব্যবহার করেন।

অবিকল রিকসার মত করে তৈরী করেন পরিবেশ বান্ধব ও দৃষ্টি নন্দন ছোট একটি গাড়ি। বর্তমানে এই ছাগলটিকে এমন ভাবে পোষ মানানো হয়েছে যে, ছাগলটি নিজে নিজে শিক্ষক সামাউল ইসলামের তৃতীয় শ্রেনীতে পড়ুয়া একমাত্র মেয়ে জান্নাতুল মাওয়া ছামিয়াকে নিয়ে নিয়মিত স্কুলে যায় এবং স্কুল ছুটির পর আবার বাড়ি ফিরে আসে।

সম্প্রতি চৌগাছায় প্রাথমিক শিক্ষা মেলায় শিক্ষক সামাউল ছাগলের গাড়ি নিয়ে হাজির হয়। ছাগলের গাড়িতে চড়ে মেয়ে ছামিয়াও আসেন। শিক্ষা মেলায় অভিনব এই গাড়ি দেখে সকলে মুগ্ধ হয়ে যায়। শিক্ষক ছামাউল জানান ছাগলটিকে সকাল-সন্ধ্যা খল, ভূসি ঘাস ইত্যাদি খাওয়ান হয়।

তিনি বলেন ছাগলটি ৭৫ কেজি পর্যন্ত বহন করতে পারে। একই সাথে ছাগলটি কয়েকটি ইংরেজি ভাষা বোঝে। কাম হেয়ার বললে দৌঁড়ে কাছে চলে আসে। আর স্টপ বললে থেমে যায়।

বাংলাসংবাদ২৪/মিন্টু/মাক্কী

আরও সংবাদ