Widget by:Baiozid khan
  • Advertisement

শ্রীমঙ্গলের বিলাসবহুল ফাইভ স্টার হোটেল 'গ্রান্ড সুলতান টি রিসোর্ট অ্যান্ড গল্ফ’

Published:2014-09-15 15:10:15    

জেলা প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে এশিয়ার মধ্যে নতুন কিছু বিনোদন ও নয়নাভিরাম জায়গা নিয়ে বিলাসবহুল ফাইভ স্টার হোটেল ও রিসোর্ট 'গ্রান্ড সুলতান টি রিসোর্ট অ্যান্ড গল্ফ'। যার নির্মাণ ব্যয় ২৩৫ কোটি টাকা। দেশী ও বিদেশী পর্যটকদের কাছে অতি পরিচিত পর্যটন এলাকা খ্যাত চায়ের রাজধানী মৌলভীবাজারের পর্যটকদের জন্য শ্রীমঙ্গল উপজেলাধীন লাউয়াছড়া ন্যাশনাল পার্ককে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে লাক্সারী রিসোর্ট ও ফাইভ স্টার হোটেল।

বাংলাদেশ পর্যটন ও রিসোর্ট এর চেয়ারম্যান খাজা টিপু সুলতান এর সার্বিক ব্যবস্থাপনায় 'গ্রান্ড সুলতান টি রিসোর্ট ও গল্ফ' নামের রিসোর্টে রয়েছে অত্যাধুনিক সব ধরণের ব্যবস্থা। সম্পূর্ণ বাংলাদেশি অর্থায়নে চা, ঝর্ণা আর বনভূমির নয়নাভিরাম শহর চা শিল্পাঞ্চল হিসেবে পরিচিত শ্রীমঙ্গলে ১৩.২ একর জায়গা নিয়ে শহরের অদূরে বাংলাদেশের প্রথম ফাইভ স্টার ও আন্তর্জাতিক মানের হোটেলটির যাত্রা।

আধুনিক সকল সুযোগ-সুবিধাসহ ২ হাজার বর্গফুট জায়গার উপর গড়ে তোলা ৯ তলা ভবনে রয়েছে ১৪৫ টি কক্ষ এরমধ্যে ৪৫ টি কিং সাইজ এবং ৪৩ টি কুইন সাইজ বিছানা সমৃদ্ধ রুম। এতে পর্যটকদের বিনোদনসহ থাকা ও খাওয়ার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। খেলাধুলার জন্য রয়েছে একটি অসাধারন ৯ হোল অ্যামেচার গল্ফ মাঠ, লং টেনিস মাঠ, ব্যাডমিন্টন, বিলিয়ার্ড ও টেবিল টেনিস। বাচ্ছাদের জন্য আলাদা প্লে-জোনও রয়েছে। এ্যামিবা আকৃতির বিশাল সুইমিংপুলসহ সুনিয়ন্ত্রিত তাপমাত্রার সর্বমোট ৩ টি সুইমিংপুল রয়েছে। দেশের প্রথম অথিথি আবাস হিসেবে রিসোর্টটিতে থ্রী-ডি থিয়েটার হল রয়েছে যেখানে ৪৪ জন বসে সিনেমা উপভোগ করতে পারবেন।

এখানে এশটি সুবিশাল পাঠাগারও স্থাপন করা হয়েছে। গল্ফ মাঠে হেলিকপ্টারও নামতে পারবে। এছাড়াও এখানে রয়েছে ১২শ জনের স্থান সংকুলান সমৃদ্ধ রোশনি মহল ও ৭শ ৫০ জনের স্থান সংকুলান সমৃদ্ধ নওমি মহল। রিসোর্টটিতে রয়েছে ফোয়ারা ডাইন, শাহী ডাইন ও অরণ্য বিলাস নামের ৩৩০ আসন বিশিষ্ট ফাইভ স্টার মানের রেষ্টুরেন্ট। এছাড়াও রয়েছে গল্ফ পাহাড়িকা, পুল ডেক ও ক্যাফে মঙ্গল নামে দুর্দান্ত তিনটি ক্যাফে। কর্পোরেট অতিথিদের জন্য ভিন্ন মাত্রার সুবিধা রয়েছে। ৩ টি অত্যাধুনিক মিটিং কক্ষ, অত্যাধুনিক সুসজ্জিত জিমনেশিয়ামসহ রিসোর্টটিতে রয়েছে স্পা, সনা, জ্যাকুজি ও মাসাজ পার্লার।

বাংলাসংবাদ/ইকরাম

আরও সংবাদ