Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Tue September 25 2018 ,

৫ লাখ টাকা চাঁদা চেয়ে শিক্ষিকাকে পদত্যাগের অভিযোগ:

Published:2015-03-03 14:43:47    
 
নিজস্ব প্রতিবেদক : সিলেট জেলার গোয়াইন ঘাট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা (জীববিজ্ঞান) মোসা. জাকিয়া আক্তার ভুঁইয়াকে ৫লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে পরিকল্পিতভাবে স্কুল থেকে পদত্যাগ করা হয়েছে।
মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ক্রাইম রিপোর্টাস বহুমুখী সমবায় সমিতি মিলনায়তনে আয়োজীত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তবে একথা জানান নির্যাতিতা ওই শিক্ষিকা জাকিয়া আক্তার।
 
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ২০০৩ সালে গোয়াইন ঘাট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা (জীববিজ্ঞান) হিসেবে যোগদান করেন। তার স্বামী জহিরুল কবির সরকার একজন ব্যবসায়ী ও একই স্কুলের অভিবাবক কোটায় কমিটির একজন সদস্য।২০১৪ সালের নভেম্বর মাসে স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. গোলাম কিবরিয়া হেলাল জাকিয়ার স্বামীর অনুপস্থিতিতে হঠাৎ করে কমিটির সভা আহ্বান করেন। ওই কমিটিতে হঠাৎ করে তাকে পদত্যাগ করার কথা বলা হয়। এসময় তিনি এর প্রতিবাদ করলে তাকে সম্মান হানি ও স্বামী এবং সন্তানদের প্রাণ নাশের হুমকি দেওয়া হয়। এমনকি কমিটির সদস্য লুৎফুল হক, আব্দুল মালিক ও হাফিজ তাজুল অকথ্য ভাষায় চতুরমুখী তাকে আক্রমন করেন। শেষ পর্যন্ত পরিকল্পিত ও সাজানো ওই সভায় ইজ্জত ও জীবন বাঁচাতে অব্যাহতি পত্র দিতে বাধ্য হন তিনি। 
এছাড়াও একই প্রক্রিয়ায় কৃষি শিক্ষক মো. শফিকুল ইসলাম ও ইংরেজীর শিক্ষক মো. তোফাজ্জল হোসেনের কাছ থেকে অব্যাহতি পত্র নেওয়া হয় বলে জানান তিনি।
 
তিনি বলেন, পরবর্তীতে কমিটির সদস্য লুৎফুল হক ও আব্দুল মালিক আমার কাছ থেকে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করেন। উনারা বলেন, ওই টাকা প্রদান করলে পরিচালনা কমিটি খুশি হয়ে তোমার চাকুরী ফিরিয়ে দেবে। এমনকি তারা শুধু চাঁদা চেয়ে থেমে থাকেনি চাকুরী ফিরিয়ে দেওয়ার নামে কু-প্রস্তাব দিয়েছে বলেও তিনি লিখিত বক্তব্যে বলেন। 
তিনি আরো বলেন, আমার বড় ছেলে জুনায়েদ ২০১২ সালে পিএসসি পরীক্ষায় টেলেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছিল এবং সে ওই বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে অধ্যায়নরত। কিন্তু গেল বছর তারা আমার ছেলেকেও বার্ষিক পরীক্ষায় অংশ নিতে দেয়নি। 
এসব ঘটনার ব্যাপারে তিনি স্থানীয় থানার সহযোগীতা নিতে গেলে থানার অফিসার ইনচার্জও তাকে উল্টো অশালীন কথাবর্তা বলে অপমান করে থানা থেকে বের করে দেন বলেও লিখিত বক্তব্যে তিনি অভিযোগ করেন। এসমস্ত বিষয় স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও গোয়াইন ঘাট শিক্ষক সমিতির সকল শিক্ষক অবগত আছেন বলেও জানান তিনি। 
এ অবস্থায় তিনি ঘটনার সুষ্ঠু নিরপেক্ষ তদন্ত, দোষীদের শাস্তি, চাকুরী, জীবনের নিশ্চয়তা ও সন্তানদের নিরাপদ ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রী ও প্রশাসনের সহায়তা কামনা করেন।
 
বাংলাসংবাদ/মুন্না/আল-আমিন
 

আরও সংবাদ