Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Thu October 21 2021 ,

  • Techno Haat Free Domain Offer

জাতি আজ কর্তৃত্ববাদী, দুর্নীতিবাজ ও খুনি সরকারের কাছে জিম্মি

Published:2015-03-27 20:27:19    
বর্তমান শাসকগোষ্ঠীর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা আঁকড়ে রাখার প্রবল বাসনাই দেশকে চরম ও ভয়াবহ সঙ্কটে নিপতিত করেছে বলে মন্তব্য করেছে ২০ দলীয় জোট। জোটের পক্ষে বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব বরকত উল্লাহ বুলু আজ শুক্রবার এক বিবৃতিতে বলেন, সরকার অবিলম্বে একটি গ্রহণযোগ্য সংসদ নির্বাচনের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলে প্রত্যাশা করি। কিন্তু জনগণের দাবি মানতে সরকার নেতিবাচক ভূমিকায় কঠোর অবস্থানে থাকলে ২০ দলীয় জোট জনগণকে সাথে নিয়ে আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে যেতে পিছপা হবে না।
 
জনগণের ন্যায়সঙ্গত দাবি কেউ কখনো বাধাগ্রস্ত করতে পারেনি ভবিষ্যতেও কেউ পারবে না। জনগণ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে স্বৈরতন্ত্রের পতন ঘটাবেই ইনশাআল্লাহ।
বরকত উল্লাহ বুলু বলেন, বৃহস্পতিবার পালিত হলো মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস। স্বাধীনতার চার দশক পর গোটা জাতি একটি কর্তৃত্ববাদী, দুর্নীতিবাজ, লুটেরা ও খুনি সরকারের সীমাহীন অত্যাচার-নিপীড়ণ ও নিষ্ঠুর জুলুম-নির্যাতনের যাঁতাকলে নিষ্পেষিত অবস্থায় দিবসটি পালন করলো। দেশের মানুষের প্রাণ স্বৈরতন্ত্রের পদতলে ওষ্ঠাগত। এ অবস্থায় দেশের মানুষ মুক্তির প্রতিক্ষায়
 
২০ দলীয় জোটের ডাকে সর্বাত্মক আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে। স্বাধীনতার মাসে দেশের প্রতিটি মানুষের মনে প্রশ্ন-স্বাধীনতা দিবসের জাতীয় অনুষ্ঠানমালায় প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধারা অনুপস্থিত কেনো? কেনো বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের হাজার হাজার সন্তানরা আজ স্বৈরশাসকের লেলিয়ে দেয়া বিশেষ বাহিনী কর্তৃক মিথ্যা মামলায় আটক ও কারান্তরীণ বা ঘাতকের ভয়ে প্রাণ বাঁচাতে আত্মগোপনে? 
 
বরকত উল্লাহ বুলু বলেন, যে দেশে মানুষের ভোট দেয়ার অধিকার নেই, মত প্রকাশ ও চলাফেরার স্বাধীনতা নেই সেই দেশের নাগরিক হিসেবে আমরা কতটুকু স্বাধীন তা ভাববার সময় এসেছে। মুক্তিযুদ্ধের মহান অর্জনকে যারা কালিমালিপ্ত করে অবৈধ পন্থায় দেশের ক্ষমতাবান, জনগণ কোনোদিনই তাদের ক্ষমা করবে না। এটাই ইতিহাস। তাই আমরা মনে করি ব্যক্তি স্বাধীনতা, নাগরিকের সুরক্ষা এবং গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠাকল্পে দেশের বিদ্যমান রাজনৈতিক অচলাবস্থা অবসানে আলোচনার মাধ্যমে তা উত্তরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে সরকার। 
 
বিএনপির এ যুগ্ম-মহাসচিব বলেন, ২০ দলীয় জোটসহ দেশবাসী হতাশ হয়েছে। কেননা বিরোধী দলের সদর দফতর তিন মাস ধরে তালাবদ্ধ। শীর্ষ নেতৃবৃন্দসহ সারাদেশে মিথ্যা ও রাজনৈতিক হীন উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলায় অগণিত নেতাকর্মী কারান্তরীণ। বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদ ও দেশব্যাপী অসংখ্য নেতা-কর্মী নিখোঁজ কিংবা গুম অবস্থায় আছেন। হাজার হাজার নেতাকর্মী পুলিশী নির্যাতনের ভয়ে আত্মগোপনে এবং সর্বোপরি যে দেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে প্রতিনিয়ত বন্দুকযুদ্ধের নামে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদেরকে নির্মমভাবে প্রাণ দিতে হচ্ছে। সেই বিভীষিকাময় ও ভীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টিকারী সরকার সঙ্কট সমাধানের কোনো উদ্যোগ গ্রহণে নেতিবাচক ভূমিকায় অটল রয়েছে।
 
তিনি বলেন, বিএনপির অন্যতম যুগ্ম-মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদকে স্বাধীনতার মাসে অপহরণ করা প্রকৃত অর্থে স্বাধীনতাকেই অপহরণ করার শামিল। দেশবাসীর প্রত্যাশা-পরিবারের দাবি অনুযায়ী আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সালাহ উদ্দিন আহমেদকে তার পরিবারের কাছে অক্ষত অবস্থায় ফেরত দিবে এবং ২০ দলীয় জোটের অপহরণকৃত অন্যান্য নেতা-কর্মীদেরও তাদের পরিবারের কাছে ফেরত দিয়ে সরকার স্বাধীনতার মাসের পবিত্রতা রক্ষা করবে। 
 
এ ছাড়া আজ নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার লাঙ্গলবন্দে ব্রহ্মপুত্র নদে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের পূণ্যস্নানে যোগ দিতে আসা পূণ্যার্থীদের প্রচন্ড ভীড়ে পদদলিত হয়ে নারী ও শিশুসহ ১০ জনের প্রাণহানী এবং অর্ধশতাধিক আহত হওয়ার ঘটনায় ২০ দলীয় জোট গভীর শোক ও সমবেদনা জ্ঞাপন করছে। নিহতদের রুহের শান্তি কামনা করে ২০ দলীয় জোট আহতদের সুচিকিৎসার দাবি জানাচ্ছে।

আরও সংবাদ