Widget by:Baiozid khan

এ কোন ইসলাম কাকরাইল মসজিদে ?

Published:2015-08-19 21:06:27    

কবির হোসেনঃ একজন মুসলমান হিসেবে ইসলামকে অনেক ভালবাসি এটা বলে প্রকাশ করার মধ্যে কোন বাহাদুরি নেই। ইসলাম সাধারণ ভাবে সকলের প্রতি সমান আচরণে বিশ্বাস করে তাতেও কোন সন্দেহ করার ক্ষমতা নেই। এর চাইতে আরো সত্য যে ইসলামে পবিত্রঘর মসজিদ, এখানে ধনি-দরিদ্র, রাজা-বাদশা সকলেই সমান। কারো কোন বিশেষ মর্জাদা এখানে নেই।

একজন পাঠক হিসেবে ইসলামের যে বিধান গুলো পড়েছি তাতে আমি নিশ্চিন্তে বলতে পারি, ইসলাম কোন বিশেষ ব্যক্তির জন্য নয়। এখানে সকলেই সমান। 
কিন্তু জীবনের প্রথম ব্যতিক্রম হিসেবে কাকরাইল মসজিদকেই পেলাম। যেখানে বিশেষ বিশেষ জায়গায় বিশেষ ব্যাক্তিদের বসার ব্যবস্থা। যেখানে অন্য কেও বসতে পর্যন্ত পারেনা।

আজ আসর নামাজের কিছু সময় পুর্বে পল্টন থেকে কাকরাইল হয়ে ফার্ম গেটের দিকে আসছিলাম। আসর নামাজ কাকরাইল মসজিদে আদায় করার জন্য মসজিদে প্রবেশ করে যথারিতি অযু করে পাশেই বসে গেলাম। নামাজের এখনও বেশ সময় বাকি, তাই ভাবলাম বসে থাকি সময় হলে নামাজ পরে তারপর না হয় রওনা দেব।

কিন্তু একি ! দুজন মুরুব্বি মানুষ এসে আমাকে যে জায়গায় বসেছি সেখান থেকে সরে যেতে বললেন। আমি বিনয়ের সাথে জনতে চাইলাম, কেন অন্য জায়গাতে বসতে হবে কেন। কোন সমস্যা আছে ? মুরুব্বি এবার বললেন এই জায়গা বিদেশি মেহমান দের জন্য। এখানে কোন দেশি মানুষ বসতে পারেনা। আপনি এখান থেকে সরে গিয়ে অন্য জাযগাতে বসুন।

আমি বোকার মত লোকটির কথা মেনে নিতে বাদ্য হলাম। কিন্তু কৌতুহলি মনটা জানতো চাচ্ছিল কেন আমাকে এখানে বসতে দিলনা? এখানে কি হয়? তবে কি ইসলামের নামে অন্য কিছু ইত্যাদি প্রশ্নে নিজেকে যখন জানার চেষ্টা করছি। ততোক্ষনে আমাকে অনেকদুর চলে যেতে হয়েছে।

ভাবতে ভাবতে মসেজিদের এপাম ও পাশ ঘুড়তে শুরু করলাম। কিন্তু এ কি অবস্থা এতো মসজিদ নয় যেন একটা মেস। এখানে কেও ঘুমাচ্ছে। কেও নামাজ পরছে। কেও গল্প করছে। এতো মানুষের অবস্থা গেল। কিন্তু মসজিদের অবস্থা দেখে আমি একে সত্যই ছাত্রাবাস মনে করেছি।

কাপড় শুখানো, এলোমেল বসেথাকাসহ মেসের ভিতরের সকল কিছুই পাওয়া গেল এখানে।

এখানে এতো মানুষ কেন ? আল্লাহ তো মানুষকে মসজিদে থাকতে বলেননি। তিনিতে কোরআনে বলেছেন যে তোমরা নামাজ শেষে জমিনে ছড়িয়ে। এরা তবে কোন ইসলাম মানছে ? ইসলাম হলে তো মসজিদে বিশেস কোন ব্যাক্তিদের জন্য বিশেষ জায়গা থাকার কথা না।

কাকরাইল মসজিদে কি তাহলে নতুন ইসলামের আগমন হল।

বাংলাসংবাদ24.কম/কবির হোসেন।

 

আরও সংবাদ