Widget by:Baiozid khan
  • Advertisement

জানুয়ারির পর বন্ধ ৩ "ইন্টারকানেকশন এক্সচেইঞ্জ" কার্যক্রম

Published:2016-01-24 08:14:31    
সরকারের বকেয়া প্রায় দেড়শ কোটি টাকা জানুয়ারির মধ্যে পরিশোধ না করলে তিনটি ইন্টারকানেকশন এক্সচেইঞ্জ বা আইসিএক্স প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি।
 
এগুলো হলো- আইসিএক্স অপারেটর ক্লাউড টেল লিমিটেড, গ্যাটকো টেলিকমিউনিকেশন্স লিমিটেড ও এম এম টেলিকমিউনিকেশন্স লিমিটেড।
 
সম্প্রতি পাঠানো এক চিঠিতে ৩১ জানুয়ারির মধ্যে বকেয়া পরিশোধে ব্যর্থ হলে তিন প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে সতর্ক করেছে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স রেগুলেটরি কমিশন।
 
একইসঙ্গে এসময়ের মধ্যে প্রতিষ্ঠান তিনটির আন্তর্জাতিক অন্তর্মুখী কল-সীমা দৈনিক সর্বোচ্চ ২৫ হাজার মিনিটে বেঁধে দিয়েছে বিটিআরসি।
 
বৃহস্পতিবার বিটিআরসি ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড অপারেশন্স বিভাগের সিনিয়র সহকারী পরিচালক মো. মেহফুজ বিন খালেদ স্বাক্ষরিত চিঠিতে এসব নির্দেশনা দেওয়া হয়।
 
চিঠিতে বলা হয়, “তিনটি আইসিএক্সকে সরকারের সমুদয় পাওনা বকেয়া আগামী ৩১ জানুয়ারি মধ্যে পরিশোধের অনুরোধ করা হলো। পাওনা না দিলে অপারেশনাল কার্যক্রম বন্ধসহ প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।”
 
সব মিলে তিন প্রতিষ্ঠানের কাছে ১৪৭ কোটি কোটি পাঁচ লাখ টাকা পাওনা রয়েছে বলে বিটিআরসির ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।
তিনি বলেন, “ক্লাউড টেলের কাছে সরকারের পাওনা ২১ কোটি ৮৫ লাখ টাকা, গ্যাটকোর কাছে পাওনা ৮৮ কোটি ২৫ লাখ টাকা এবং এম এম কমিউনিকেশনের কাছে পাওনা ৩৬ কোটি ৯৫ লাখ টাকা।”
 
বিটিআরসি দীর্ঘদিন ধরে বকেয়া আদায়ে চিঠি দিয়ে যোগাযোগ করতে থাকলেও পরিশোধের জন্য তিন প্রতিষ্ঠানের কোনো তৎপরতা দেখায়নি বলেই বিটিআরসি কঠোর পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হচ্ছে বলে জানান এই কর্মকর্তা।
 
এর আগে গত ৫ জানুয়ারি থেকে এই তিন প্রতিষ্ঠানে আন্তর্জাতিক বহির্গামী কল-সীমা দৈনিক সর্বোচ্চ এক লাখ মিনিটে বেঁধে দেয় বিটিআরসি।
 
ইন্টারনেট গেটওয়ের (আইজিডব্লিউ) মাধ্যমে বাইরের প্রতিটি কল দেশে প্রবেশের পর আইসিএক্স প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে তা সংশ্লিষ্ট অপারেটরের কাছে পৌঁছায়। অপারেটর গ্রাহকের ফোনে কল সংযোগ দেয়।
 
স্থানীয়ভাবে একটি কলের ক্ষেত্রেও এক অপারেটর থেকে আরেক অপারেটরে সংযোগ দিয়ে থাকে আইসিএক্স অপারেটররা।
 
স্থানীয় কলে (ডমিস্টিক ইন ও আউট) প্রতি মিনিটে আইসিএক্সগুলো ৪ পয়সা করে পেয়ে থাকে। এই ৪ পয়সার ৬৫ দশমিক ৭৫ শতাংশ সরকারকে রাজস্ব দিতে হয়।
 
আন্তর্জাতিক কল আদান-প্রদানে বিভিন্ন হারে সরকারকে রাজস্ব দিতে হয় আইসিএক্সকে।
 
বর্তমানে দেশে আইসিএক্স প্রতিষ্ঠান রয়েছে ২৬টি। এর মধ্যে ২০১২ সালেই লাইসেন্স পেয়েছে ২৩টি প্রতিষ্ঠান।
 
বাজার যাচাই না করেই অতিরিক্ত লাইসেন্স দেওয়ায় ব্যবসা নিয়ে সমস্যায় পড়ার অভিযোগ আগেই করে আসছিলেন অপারেটররা।

আরও সংবাদ