Widget by:Baiozid khan

ঢাকা Wed November 21 2018 ,

  • Advertisement

একুশের চেতনায় অগণতান্ত্রিক শক্তিকে রুখতে হবে: বুলবুল

Published:2016-02-21 20:29:03    

ঢাকা: মহান একুশের চেতনা ধারণ করে দেশ থেকে স্বৈরাচার, ফ্যাসিবাদ ও অগণতান্ত্রিক শক্তিকে রুখে দেশে গণতন্ত্র, মানবাধিকার, আইনের শাসন ও সাম্য প্রতিষ্ঠার জন্য সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও ঢাকা মহানগর সেক্রেটারি নূরুল ইসলাম বুলবুল।

রোববার বিকেলে ঢাকা মহানগর জামায়াত আয়োজিত আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে এ আহ্বান জানান।

বুলবুল বলেন, মূলত ভাষা আন্দোলনের চেতনা স্বাধীনতা, মানবাধিকার ও সাম্যের চেতনা। কিন্তু স্বাধীনাতর ৪ দশক অতিক্রান্ত হলেও আমরা সে লক্ষ্যে এখনও পৌঁছতে পারিনি। বিজাতীয় আগ্রাসনে আমাদের ভাষা ও সংস্কৃতি আজ অরক্ষিত। তাই মায়ের ভাষা ও নিজস্ব সংস্কৃতি রক্ষায় আমাদেরকে ঐক্যদ্ধ হতে হবে। একুশের চেতনা ধারণ করেই দেশ থেকে  স্বৈরাচার, ফ্যাসিবাদ ও অগণতান্ত্রিক শক্তিকে রুখে দিয়ে দেশে গণতন্ত্র, মানবাধিকার, আইনের শাসন, সাম্য ও মৈত্রী প্রতিষ্ঠায় সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

তিনি বলেন, ভাষা আন্দোলনের সূচনা হয়েছিল প্রিন্সিপাল আবুল কাসেম নেতৃত্বাধীন তমুদ্দন মজলিশের মাধ্যমে। ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহও মহান ভাষা আন্দোলনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখেন। ডাকসুর সাবেক জিএস অধ্যাপক গোলাম আযম ছিলেন ভাষা আন্দোলেনর অন্যতম পুরোধা।

তিনি রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে ডাকসুর জিএস হিসেবে লিয়াকত আলীর খানের কাছে স্মারকলিপি পেশ করেছিলেন। মূলত ইসলমপন্থীরাই ছিলেন ভাষা আন্দোলনের নেতৃত্বে। কিন্তু মহল বিশেষ ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস বিকৃত করে প্রকৃত ভাষা সৈনিকদের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দেয়ার পরিবর্তে বামপন্থী ও সরকারের প্রতি আনুগত্যশীলদের মূল্যায়ন করছে।
যে জাতি গুণিজনের কদর করে না, সে জাতির মধ্যে গুণিজন জন্মায়ও না এবং সে জাতি আত্মনির্ভরশীল ও আত্মমর্যাদাবন জাতি হিসেবে মাতা উঁচু করে দাঁড়াতে পারে না। তাই দেশ ও জাতির বৃহত্তর স্বার্থে মহান ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসে বিকৃতি রোধ এবং প্রকৃত ভাষা সৈনিকদের যথাযথ সন্মান প্রদর্শনের কোন বিকল্প নেই।

তিনি আরও বলেন, ফেব্রুয়ারি আসলে বাংলা ভাষার মর্যাদা সম্পর্কে অনেক কথাই বলা হয়। কিন্তু ভাষার উৎকর্ষ ও বিকাশ সাধনে কোন কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় না। অনেক ত্যাগের বিনিময়ে বাংলা ভাষা রাষ্ট্রীয় মর্যাদা লাভ করলেও রাষ্ট্রের সকল পর্যায়ে এখনও বাংলা ভাষার প্রচলন করা সম্ভব হয়নি। দেশের আইন-আদালত, চিকিৎসা শাস্ত্র, আইন, বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিষয়ক প্রকাশনাগুলো এখনও বাংলা ভাষায় রচনা বা অনুবাদ করা হয়নি। ফলে উচ্চ শিক্ষা ও গবেষণার ক্ষেত্রে বাংলা ভাষা এখনও উপেক্ষিত। ভাষা ও সংস্কৃতি অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। কিন্তু আমরা বিদেশি ভাষা ও সংস্কৃতিতে ক্রমেই অভ্যস্ত হয়ে উঠছি। বিশেষ করে তরুণ প্রজন্মের কাছে তা রীতিমত ফ্যাসনে পরিণত হয়েছে। যা আমাদের ভাষা, সমাজ ও সংস্কৃতির সঙ্গে সম্পূর্ণ সঙ্গতিহীন। তাই সকলকে এই হীনমন্যতা পরিহার করতে হবে।

আলোচনা সভায় ঢাকা মহানগর কর্মপরিষদ সদস্য আব্দুস সবুর ফকির, ড. আব্দুস সামাদ, ড. আব্দুল মান্নান নিজামুল হক নাঈম উপস্থিত ছিলেন।

কাফরুল থানা

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে কাফরুল থানা জামায়াতের উদ্যোগে আলোচনা সভা দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

থানা আমির অধ্যাপক আনোয়ারুল করিমের সভাপতিত্বে সভায় জামায়াত নেতা আব্দুর রহমান মুসা, আব্দুল মতিন খান, ওয়াহিদুর রহমান তপন, শামসুর রহমান খান, আবুল বাশার ও মাসুম বিল্লাহ উপস্থিত ছিলেন।

উত্তরা পশ্চিম

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস  উপলক্ষে উত্তরা পশ্চিম থানার উদ্যোগে  আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সভায় থানা সেক্রেটারি আব্দুল্লাহ রেজা, জামায়াত নেতা সানু, ফারুক, মাওলানা আবু সাঈদ, জাহাঙ্গীর, তাজ ও হাবিব উপস্থিত ছিলেন।

উত্তরখান  

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে উত্তরখান থানার উদ্যোগে রোববার সকাল ১০ টায় আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সভায় জামায়াত নেতা ইফতেখার মোহাম্মদ আকন্দসহ অন্যান্য নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

তুরাগ থানা

তুরাগ  থানার উদ্যোগে সকাল ৭ টায় আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সভায় থানা সেক্রেটারি এস আর মোল্লা, জামায়াত নেতা আব্দুল হান্নান পাটওয়ারী, সাইফুর রহমান ও খলিলুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উত্তরা পূর্ব

উত্তরা পূর্ব  থানার উদ্যোগে সকাল ১০ টায় আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সভায় থানা আমির এ্যাড. বেলায়েত হোসাইন সুজা, জমায়াত নেতা মাহবুবুর রহমান ফেরদৌসি, রুহুল আমিন, সাইফুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

বিমানবন্দর

মহান ভাষা দিবস উপলক্ষে বিমানবন্দর থানার উদ্যোগে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সভায় থানা আমির মাওলানা মুহ্বিবুল্লাহ, জামায়াত নেতা এনামুল হক শিপন, আবুল হাসেম, মাহবুবুল আলম দিদার ও শামীম হোসাইন উপস্থিত ছিলেন।

রমনা থানা

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও মহান শহীদ দিবস উপলক্ষে ডাকসুর সাবেক জি এস ও জামায়াতের সাবেক আমির অধ্যাপক গোলাম আযমের কবর যিয়ারত করেছে জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীরা।

রোববার সকাল সাড়ে ৬ টার দিকে ছাত্রশিবিরের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি ও জামায়াতের কেন্দ্রীয় মজলিসে শুরার সদস্য ড. রেজাউল করিমের নেতৃত্বে জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীরা গোলাম আযমের কবর যিয়ারত করেন।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জামায়াত নেতা ইউসুফ আলী, আতাউর রহমান সরকার, মাহবুবুর রহমান, তবিবুর রহমান, শাহজালাল খান ও ইব্রাহিম খলিল প্রমুখ।

জেএইচ