Widget by:Baiozid khan
  • Advertisement

হিলি স্থলবন্দর পরিদর্শন করলেন রাজস্ব সদস্য ফরিদ উদ্দিন

Published:2016-03-17 17:13:33    
নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) থেকে এম.রুহুল আমিন প্রধানঃ দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম হিলি স্থলবন্দর পরিদর্শন করলেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) এর সদস্য (শুল্ক:নীতি) মোঃ ফরিদ উদ্দিন। এসময় তার সাথে কাষ্টমস এক্য্রসাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট রংপুরের কমিশনার ও যুগ্ম কমিশনার উপস্থিত ছিলেন।
 
বুধবার দুপুর ২টায় তিনি হিলি স্থলবন্দর পরিদর্শনে পানামা হিলি পোর্টে আসেন। এসময় তাকে স্থানীয় হিলিস্থলবন্দর শুল্কষ্টেশন, বন্দর কতৃপক্ষ ও সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।
 
পরে তিনি হিলি স্থলবন্দর শুল্কষ্টেশনের কর্মকর্তা ও স্থানীয় ব্যবসায়ী এবং সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দকে সাথে নিয়ে বন্দরের ভেতরে দুই দেশের মাঝে আমদানি রফতানি বানিজ্য কার্যক্রম, পন্য পরিমাপক যন্ত্র এবং বন্দরের বিভিন্ন অবকাঠামো ঘুরে ঘুরে দেখেন। পরে তিনি পানামা হিলি পোর্ট লিংক লিমিটেডের সভাকক্ষে স্থানীয় কাষ্টমস কর্মকর্তা, বন্দরের আমদানি, রফতানিকারক ব্যবসায়ী ও সিএন্ডএফ এজেন্ট গনের সাথে বৈঠক করেন। 
 
বৈঠকে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পন্য আমদানিতে বিভিন্ন ধরনের প্রশাসনিক হয়রানি, পাথরবাহী ট্রাকগুলোকে সরকারি শুল্ক পরিশোধ স্বাপেক্ষে বন্দরের বাহিরে লোড আনলোডের ব্যাবস্থা গ্রহন, হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি রফতানি কার্যক্রমের সুবিধা অসুবিধার বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরে এ বিষয়ে কার্যকর ব্যাবস্থা গ্রহন করতে অনুরোধ জানান।
 
বৈঠকে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) এর সদস্য (শুল্ক:নীতি) মো.ফরিদ উদ্দিন সাংবদিকদের জানান, হিলি একটি গুরুত্বপূর্ন স্থলবন্দর। এদিক দিয়ে প্রচুর পরিমানে মালামাল মুলত আমদানি হয়ে থাকে। দেশের সকল স্থলবন্দরগুলো পর্যবেক্ষন করে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর), আমার দায়িত্ব হচ্ছে মাঝে মধ্যে এসমস্ত বন্দরগুলো এসে পরিদর্শন করা যাতে এগুলো যেভাবে আইন কানুনে বলা আছে যেভাবে চলা উচিৎ সে ভাবে চলছে কিনা। আমদানি কারকরা আইনানুগভাবে যে ধরনের সুযোগ সুবিধা ও সেবা পাওয়ার কথা সেগুলো তারা ঠিকমতো পাচ্ছে কিনা এবং সরকার তার ন্যায্য রাজস্ব পাচ্ছে কিনা এসব দেখার জন্য আমি আজ এখানে এসেছি।
 
তিনি আরো জানান, রাজস্ব ফাঁকি দেওয়ার মত এখন কোন অবস্থা আর নেই, দেশের সবগুলো বন্দরের উপরে এনবিআরের কড়া নজরদাড়ি রয়েছে। রাজস্ব ফাকির ঘটনা ঘটলে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দেশের সবগুলো বন্দর দিয়ে ব্যবসায়ীরা যাতে আমদানি রফতানি বানিজ্য কার্যক্রম পরিচালনা করতে হয়রানীর শিকার না হয়ে নিয়মতান্ত্রিক ভাবে ব্যবসা করতে পারে সে বিষয়ে তারা সহযোগিতা করবেন বলেও তিনি জানান।
 
বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, কাষ্টমস এক্য্রসাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট রংপুরের কমিশনার আহসানুল হক, যুগ্ন কমিশনার একে এম নুরুল হুদা আজাদ, হিলি স্থলবন্দর শুল্কষ্টেশনের সহকারী কমিশনার মোহাম্মদ তাহের উল আলম চৌধুরী, রাজস্ব কর্মকর্তা সুবাষ চন্দ্র কুন্ডু, মো.আলাউদ্দিন, হাকিমপুর পৌরসভার মেয়র জামিল হোসেন চলন্ত, বাংলাহিলি কাষ্টমস সি এন্ড এফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি আবুল কাশেম আজাদ, সম্পাদক আব্দুর রহমান লিটন, যুগ্ম সম্পাদক শাহিনুর রেজা শাহীন, হিলি স্থলবন্দর আমদানি রফতানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুন উর রশীদ হারুন, জয়পুরহাট চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি আব্দুল হাকিম মন্ডল, দিনাজপুর চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি মোসাদ্দেক আলী, ব্যবসায়ী শাহিনুর ইসলাম, আব্দুল আজিজ প্রমুখ।
 

আরও সংবাদ