Widget by:Baiozid khan
  • Advertisement

যৌন হয়রানি: আন্দোলনের মুখে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক বরখাস্ত

Published:2016-04-30 15:01:27    
যৌন হয়রানির অভিযোগ ওঠার পর শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে এক শিক্ষককে বরখাস্ত করেছে রাজধানীর আহসানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।
 
 
বরখাস্ত মাহফুজুর রশিদ ফেরদৌস বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়টির তড়িৎ কৌশল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ছিলেন। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টরের দায়িত্বও পালন করছিলেন।
 
যৌন হয়রানির অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ফেরদৌসকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে বলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক এ এম এম শফিক উল্লাহ জানিয়েছেন।
 
ওই শিক্ষকের শাস্তি দাবিতে শনিবার সকাল ১০টা থেকে প্রতিষ্ঠানটির তেজগাঁও ক্যাম্পাসের সামনে বিক্ষোভ করছিল শিক্ষার্থীরা।
 
আন্দোলনরত শিক্ষার্থী তড়িৎ কৌশল বিভাগের ছাত্র মোহাইমিনুল বলেন, “উনার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে ডিপার্টমেন্টের ছাত্রীদের যৌন হয়রানির অভিযোগ রয়েছে। এর আগেও কয়েকবার তিনি একই কাজ করেছেন।
 
“সর্বশেষ এ সংক্রান্ত একটি ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে অবহিত করেছিলাম। এরপর তিনি ওই ছাত্রীকে চাপ নিয়ে মিথ্যা বিবৃতি লিখিয়ে নেন। আমাদের দাবি, অবিলম্বে এই শিক্ষককে চাকরিচ্যুত করতে হবে এবং আইনের আওতায় নিয়ে আসতে হবে।”
 
 
এরপর দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সাময়িক বরখাস্তের সিদ্ধান্ত জানালে শিক্ষার্থীরা শান্ত হয়।
 
উপাচার্য শফিক উল্লাহ বলেন, “তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিষয়টির সুষ্ঠু তদন্ত করা হবে। ইতোমধ্যে ওই শিক্ষককে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।”
 
এ বিষয়ে কথা বলতে শিক্ষক ফেরদৌসকে ফোন করা হলে অন্য প্রান্ত থেকে একজন বলেন, “স্যার ব্যস্ত আছেন। এখন কথা বলতে পারবেন না।”
 
কে কথা বলছেন- জানতে চাইলে বলা হয়, “আমি স্যারের পিএস বলছি।”
 
তবে উপাচার্যের এপিএস নজরুল ইসলাম বলেন, “ফেরদৌস সাহেবের তো পিএস থাকার কথা নয়।”

আরও সংবাদ