Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Tue August 21 2018 ,

সাংবাদিকদের প্রবেশে রাতভর বাধা, কবর জিয়ারতে মানুষের ঢল

Published:2016-09-04 10:42:26    
একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়া জামায়াতে ইসলামীর নির্বাহী পরিষদ সদস্য মীর কাসেম আলীর কবর জিয়ারতে আজ ভোর থেকে হাজার হাজার মানুষের ঢল নামে।
 
গতকাল সন্ধা থেকেই মীর কাসেম আলীর নিজ গ্রাম চালার আশেপাশে ৮/১০ কিলোমিটারের মাঝে আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্য ব্যাতিত একজন সাধারণ মানুষকেউ ঢুকতে দেয়া হয়নি। এমনকি মানিকগঞ্জ জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি-সেক্রেটারীর নেতৃত্বে প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ জন সাংবাদিককে সন্ধায় চালা গ্রামের দিকে রওনা হলে তাদের ঘেউর থানার নলতা বাজার এলাকায় আটকে দেয় পুলিশ। ঢাকা থেকে একাধিক গাড়ীতে করে বিভিন্ন গণমাধ্যমের কর্মীরা সংবাদ কাভার করার জন্য সেখানে যেতে চাইলেও তাদের একই স্থানে আটকে দেয়া হয়। সেখানে সংবাদকর্মীরা রাতভর অবস্থান করে। ভোড় সাড়ে চারটার দিকে পুলিশ চলে গেলে সংবাদকর্মীদের সেখানে যাওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হয়। 
 
ফজরের আগেই সেখানে গণমাধ্যমকর্মীরা পৌছলে দেখা যায় কবর জিয়ারতে অংশগ্রহণ করেন বিভিন্ন বয়সের মানুষ। এ সময় মীর কাশেমের রূহের মাগফিরাত কামনায় মোনাজাত করেন তারা। মোনাজাতে অনেককেই আবেগাপ্লুত হতেও দেখা যায়। দাফনের সময় এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, মীর কাশেম আলীর লাশ যখন কবরে নামানো হয় তখন কবরের আশে-পাশে হাজার হাজার মানুষের কান্নার শব্দ ভেসে আসতে থাকে। পুলিশ চলে যাওয়ার সাথে সাথে সেখানে কবর জিয়ারতের জন্য সমবেত হয়। 
 
 
এর আগে রোববার রাত ৩:২০ মিনিটে পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে জানাযা শেষে লাশ দাফন করা হয়। মীর কাসেমের জানাযায় অংশ নেন শতাধিক লোক । এর মধ্যে ৪১ জনই তার পরিবারের সদস্য, আর ৪জন কবর খোঁড়ার কাজ শেষে জানাযায় অংশ নেন। এছাড়া এলাকার কোন মানুষ কে জানাজায় অংশগ্রহণ করতে দেয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা।
 
 
মানিকগঞ্জের হরিরামপুর উপজেলার চালা গ্রামে মীর কাসেম আলীর নিজ গ্রামের বাড়ির মসজিদের পাশে তাকে দাফন করা হয়েছে। এসময় চালা গ্রামে মীর কাসেমের প্রতিষ্ঠিত মসজিদ প্রাঙ্গণসহ আশপাশে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়।
 
 
শনিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টায় মীর কাসেমের মরদেহ বের করা হয় কাশিমপুর কারাগার থেকে। রাত তিনটা নাগাদ মানিকগঞ্জের চালা গ্রামে গিয়ে পৌঁছায় তার মরদেহ বহনকারী অ্যাম্বুলেন্স।
 
 
এর আগে শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে কাশিমপুর কারাগারে মীর কাসেম আলীর ফাঁসি কার্যকর করা হয় বলে সাংবাদিকদের জানান জ্যেষ্ঠ জেল সুপার প্রশান্ত কুমার বণিক। ১০ মিনিট পর অর্থাৎ রাত ১০টা ৪০ মিনিটের দিকে মীর কাসেম আলীর দেহ ফাঁসির মঞ্চ থেকে নামানো হয়।

আরও সংবাদ