Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Tue December 18 2018 ,

  • Advertisement

ইন্টার্ণ ডাক্তারদের শাস্তির প্রতিবাদে সম্মিলিত কর্মসূচি ঘোষনা

Published:2017-03-04 11:20:50    
বগুড়ায় চার ইন্টার্ন চিকিৎসককে শাস্তি দেওয়ার প্রতিবাদে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসকরা অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতিতে নেমেছেন।
 
শনিবার সকাল ৮টা থেকে তারা কর্মবিরতিসহ হাসপাতালের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন।
 
রংপুর ইন্টার্ন চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি ফারহান রহমান বলেন, বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের চার ইন্টার্ন চিকিৎসকের শাস্তি প্রত্যাহারসহ তাদের নিজেদের কর্মস্থলে বহাল রাখার দাবিতে তারা এই কর্মসূচি পালন করছেন।
 
বগুড়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা এক রোগীর স্বজনদের মারধর করায় চারজনের ইন্টার্নশিপ ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে কর্তৃপক্ষ। এছাড়া ছয় মাস পরে তাদের চারটি ভিন্ন হসপাতালে ইন্টার্নশিপ করার শাস্তিও দেওয়া হয়।
 
ক্ষুব্ধ ইন্টার্ন চিকিৎসকরা গত ১৯ ফেব্রুয়ারি বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। রোগীর স্বজনদের মারধর করার পর রোগীদের প্রতি এভাবেই তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। ক্ষুব্ধ ইন্টার্ন চিকিৎসকরা গত ১৯ ফেব্রুয়ারি বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। রোগীর স্বজনদের মারধর করার পর রোগীদের প্রতি এভাবেই তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এসব শাস্তি প্রতিরোধের জন্য রংপুরে এই কর্মসূচি পালন করা হচ্ছে বলে জানান ফারহান রহমান।
তিনি বলেন, “দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা আমাদের কর্মসূচি চালিয়ে যাব।”
 
প্রতিষ্ঠানটির উপ-পরিচালক শফিকুল ইসলাম বলছেন, কর্তৃপক্ষ ইন্টার্ন চিকিৎসকদের নিয়ে বসার চেষ্টা করছে।
 
“তারা না চাইলে জোর করে তো আর তাদের দিয়ে কাজ করানো যাবে না। আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি। আর চিকিৎসা কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখার জন্য চিকিৎসকরা অতিরিক্ত সময় দিয়ে পরিস্থিতি মোকাবিলা করছেন।”
 
আন্দোলনের সর্বশেষ কর্মসূচি:
৩ মার্চ বিকাল ৫ ঘটিকায় ঢাকায় বিএসএমএমউ তে বাংলাদেশের সকল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইন্টার্নী চিকিৎসক পরিষদ/আইডিএ প্রতিনিধিগণের এবং সিনিয়রদের উপস্থিতিতে শজিমেক হাসপাতালের ইন্টার্নদের বিরুদ্ধে গৃহীত স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে নিম্ন লিখিত কর্মসূচীসমূহ গৃহীত হয়-
১. আগামীকাল শনিবার সকাল ৮ ঘটিকা হতে বাংলাদেশের সকল মেডিকেল হাসপাতালের ইন্টার্ন চিকিৎসকবৃন্দ লাগাতার কর্মবিরতি শুরু করবে।
২. আগামী ৭২ ঘন্টার মধ্যে অন্যায় ভাবে চার ইন্টার্ন চিকিৎসক এর বিরুদ্ধে গৃহীত স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার করতে হবে, অন্যথায় হাসপাতাল সমূহের অন্যান্য চিকিৎসকদের সমন্বয়ে বৃহত্তর আন্দোলনের সূচনা করা হবে।
৩. কর্মবিরতি চলাকালীন সময়ে ইন্টার্নী চিকিৎসকবৃন্দ নিজ নিজ ক্যাম্পাসে নির্দিষ্ট স্থানে ব্যানার প্ল্যাকার্ড সহ প্রতিবাদ সমাবেশ করবে।
৪. সকল ইচিপ/আইডিএ কমিটির সভাপতি সাধারণ সম্পাদকের যৌথ স্বাক্ষরে শজিমেক হাসপাতালের ঘটনার প্রেক্ষিতে আমাদের অবস্থান উল্লেখপূর্বক কমন বিবৃতি প্রকাশ করা হবে এবং বিবৃতির অনুলিপি রাষ্ট্রের সংশ্লিষ্ট সকল কর্তৃপক্ষকে প্রদান করা হবে।
সারাদেশের সকল ইন্টার্নী চিকিৎসকদের উপরোক্ত কর্মসূচীসমূহ যথাযথভাবে পালন করার জন্য উদাত্ত আহবান জানানো হলো।

আরও সংবাদ