Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Tue December 18 2018 ,

  • Advertisement

ষোড়শ সংশোধনী: আপিল শুনানিতে দুই মাস সময় পেল রাষ্ট্রপক্ষ

Published:2017-03-07 12:49:30    
সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী অবৈধ ঘোষণার রায়ের বিরুদ্ধে আপিলের শুনানি রাষ্ট্রপক্ষের সময়ের আবেদনে দুই মাস পিছিয়ে গেছে।
মঙ্গলবার আপিল বিভাগে রিটকারী ও রাষ্ট্রপক্ষের বক্তব‌্যের শুনানি হওয়ার কথা থাকলেও অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ‘গুরুত্বপূর্ণ মামলা’ হাতে থাকার কথা জানিয়ে প্রস্তুতির জন‌্য সময়ের আবেদন করেন।
 
পরে প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার নেতৃত্বে ৭ বিচারকের আপিল বেঞ্চ শুনানির জন্য আগামী ৮ মে দিন ঠিক করে দেন বলে রিটকারীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ জানান।
 
এ মামলার শুনানিতে সর্বোচ্চ আদালত ১২ জন জ্যেষ্ঠ আইনজীবীর কাছ থেকে আইনি ব্যাখ্যা ও তাদের মতামত শুনবে।
 
গত ৮ ফেব্রুয়ারি অ্যামিকাস কিউরি (আদালতের আইনি সহায়তাকারী) হিসেবে এই ১২ জন আইনজীবীর ঘোষণা করেছিলেন প্রধান বিচারপতি।
 
তাদের মধ‌্যে ড. কামাল হোসেন তার লিখিত মতামত মঙ্গলবার আদালতে দাখিল করেন। ব্যারিস্টার রোকনউদ্দিন মাহমুদও আদালতে উপস্থিত ছিলেন।
 
বাকি দশ অ্যামিকাস কিউরি হলেন- এম আমীর-উল ইসলাম, এ এফ হাসান আরিফ, আজমালুল হোসেন কিউসি, রফিক-উল হক, আবদুল ওয়াদুদ ভূইয়া, টিএইচ খান, এমআই ফারুকী, শফিক আহমেদ, এজে মোহাম্মদ আলী ও ফিদা এম কামাল।
 
আদালত তাদেরকেও দ্রুত তাদের মতামত লিখিত আকারে জমা দিতে অনুরোধ জানিয়েছে।
 
তিন বছর আগে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনীর মাধ‌্যমে উচ্চ আদালতের বিচারকদের অপসারণের ক্ষমতা সংসদের হাতে ফিরিয়ে আনা হয়।
 
এরপর সুপ্রিম কোর্টের ৯ আইনজীবীর করা একটি রিট আবেদনে দেওয়া রুলের চূড়ান্ত শুনানি শেষে বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী, বিচারপতি কাজী রেজা-উল হক ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের হাই কোর্ট বেঞ্চ গত ৫ মে সংখ্যাগরিষ্ঠের মতের ভিত্তিতে ষোড়শ সংশোধনী অবৈধ করে রায় দেয়।
 
রায়ে বলা হয়, “সংসদের মাধ্যমে বিচারকগণের অপসারণ প্রক্রিয়া ইতিহাসের একটি দুর্ঘটনা।”
 
ওই রায়ের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল করলে গত ৫ জানুয়ারি বিষয়টি প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার নেতৃত্বাধীন চার বিচারকের বেঞ্চ ওঠে। আদালত সেদিন জানায়, ৮ ফেব্রুয়ারি এ বিষয়ে আপিল বিভাগের ‘ফুলবেঞ্চে’ শুনানি হবে।
 
সে অনুযায়ী, ৮ ফেব্রুয়ারি আবেদনটি আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে উঠলে রাষ্ট্রপক্ষ সময়ের আবেদন করে। আদালত তা মঞ্জুর করে ৭ মার্চ শুনানির দিন রাখে।
 
সেদিন আদেশে বলা হয়, রিটকারী ও রাষ্ট্রপক্ষকে তাদের বক্তব‌্য মৌখিকভাবে উপস্থাপনের জন‌্য এক ঘণ্টা করে সময় দেওয়া হবে। পাশাপাশি তাদের লিখিতভাবে যুক্তি উপস্থাপন করতে হবে। কিন্তু মঙ্গলবার রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনে শুনানি আবারও পিছিয়ে গেল।

আরও সংবাদ