Widget by:Baiozid khan
  • Advertisement

প্রতিবাদ সমাবেশে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ সরকার আতংকগ্রস্থ হয়ে কালো আইন করছে

Published:2017-07-18 19:57:26    
নিজস্ব প্রতিবেদক:
গণতন্ত্র ও গণমাধ্যম ভীতিতে সরকার আতংকগ্রস্থ হয়ে কালো আইন করছে বলে মন্তব্য করেছে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ। 
মঙ্গলবার দুপরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক এসোসিয়েশন (বামসাএ) আয়োজিত এক প্রতিবাদ সমাবেশে সাংবাদিকরা এ মন্তব্য করেন। 
বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) মহাসচিব এম আবদুল্লাহ বলেন, ৫৭ ধারায় বহু সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। আবার নতুন করে ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনের ১৯ থেকে ২২ ধারায় মত প্রকাশের স্বাধীনতা হরণের পাঁয়তারা করা হচ্ছে। নাম পাল্টে একই আইন রাখা হলে তা দেশের সাংবাদিক সমাজ মেনে নেবে না। সম্প্রচার আইন দিয়ে সব টেলিভিশনকে বিটিভি বানানোর ষড়যন্ত্র পাকাপোক্ত করা হয়েছে। আমি অবিলম্বে ৫৭ ধারা বাতিলের দাবি জানাচ্ছি এবং সকল বন্ধ গণমাধ্যম খুলে দেয়াসহ সব সাংবাদিক হত্যার বিচারের দাবি জানাচ্ছি। বিএফইউজে’র মহাসচিব আরো বলেন, সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকতে একের পর এক যে কালো আইন করছে। তাতে সরকারের শেষ রক্ষা হবে না। 
ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রধান বলেন, কোনোভাবেই ৫৭ ধারা মেনে নেয়া যায় না। গণমাধ্যমবিরোধী নতুন কোন আইন করলে সেটাও মেনে নেওয়া হবে না। তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগ বার বার প্রমাণ করেছে তারা গণমাধ্যমের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না। ক্ষমতায় এসেই তারা নতুন নতুন কালাকানুন দিয়ে গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করে। ৫৭ ধারাসহ সব কালো আইন বাতিল না করলে সাংবাদিকরা তীব্র আন্দোলনের মাধ্যমে বাধ্য করা হবে। 
ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাধারণ সম্পাদক মুরসালীন নোমানী বলেন, সাংবাদিকদের নিয়ন্ত্রণ করতে তথ্য ও যোগাযোগ আইনের যে ৫৭ ধারা চালু করা হয়েছে তা অবিলম্বে বাতিল করতে হবে। তানাহলে সাংবাদিকদের আন্দোলন চলছে এবং চলবে। এসময় তিনি আটককৃত সকল সাংবাদিকদের অবিলম্বে মুক্তি ও বন্ধ গণমাধ্যম খুলে দেয়ার দাবি জানান এবং সাগর রুনীসহ সকল সাংবাদিক হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবি জানান তিনি। 
আয়োজক সংগঠনের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন ইবনে মঈন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, বিএফইউজে‘র সহ সভাপতি মুন্সি আব্দুল মান্নান, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. শহীদুল ইসলাম, বিএফইউজে’র দপ্তর সম্পাদক আবু ইউসুফ, নির্বাহী সদস্য আসাদুজ্জামান আসাদ, শিক্ষক কর্মচারী ঐক্য জোটের চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সেলিম ভূঁইয়া, ডি. এম. আমিরুল ইসলাম অমর, খন্দকার মাসুদ উদ জামান প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সরকার মিজানুর রহমান। 
 

আরও সংবাদ