Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Mon July 16 2018 ,

মিয়ানমারে রেনেটার স্থলাভিষিক্ত হলেন ওস্তবি

Published:2017-11-01 18:35:35    

রয়টার্স :

মিয়ানমারে জাতিসঙ্ঘের বহুল বিতর্কিত আবাসিক প্রতিনিধি রেনেটা লকের মেয়াদ না বাড়িয়ে অন্তর্বর্তীকালীন দায়িত্ব পালনে নতুন একজন আবাসিক প্রতিনিধির নাম ঘোষণা করেছে জাতিসঙ্ঘ। মঙ্গলবার নরওয়ের নাগরিক নাট ওস্তবিকে অন্তর্বর্তী আবাসিক প্রতিনিধির দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। দায়িত্ব হারানো আবাসিক প্রতিনিধি রেনেটা লকের বিরুদ্ধে সম্প্রতি রোহিঙ্গা নিধনের পূর্বাভাস গোপন করা এবং মিয়ানমারের কর্মকর্তাদের রোহিঙ্গা ইস্যুতে কাজ করতে বাধা দেয়ার অভিযোগ রয়েছে।


জাতিসঙ্ঘ অবশ্য সেই অভিযোগ অস্বীকার করে দাবি করেছে, রেনেটার মেয়াদ না বাড়ানোর সঙ্গে মিয়ানমারে তার ভূমিকার কোনো সম্পর্ক নাই। রোহিঙ্গা সঙ্কট মোকাবেলায় মিয়ানমার সরকারের ব্যর্থতা নিয়ে টানাপড়েনের মধ্যেই দেশটিতে অস্থায়ীভাবে নতুন প্রতিনিধি নিয়োগ দিলো জাতিসঙ্ঘ। আফগানিস্তান, পূর্ব তিমুরসহ বেশ কয়েকটি সঙ্ঘাতের এলাকায় জাতিসঙ্ঘের কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালনের অভিজ্ঞতা রয়েছে ওস্তবির। আপাতত মিয়ানমারে সাবেক আবাসিক প্রতিনিধি রেনেটা লক ডেসালিয়ানের দায়িত্বগুলো পালন করবেন তিনি।


মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে বিতর্কিত ভূমিকা পালনের জন্য এতদিন সমালোচিত হয়ে আসছিলেন রেনেটা লক। মিয়ানমারে নিয়োজিত জাতিসঙ্ঘের কর্মকর্তারা দেশটিতে রোহিঙ্গা নিপীড়নের ঘটনাকে ধামাচাপা দেয়ার প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন বলে অভিযোগ ওঠে। আর সেই অভিযোগের মধ্যে আবাসিক প্রতিনিধি রেনেটা লকের মেয়াদ না বাড়িয়ে অস্থায়ীভাবে আবাসিক প্রতিনিধি হিসেবে নাট ওস্তবিকে দায়িত্ব দিয়েছে জাতিসঙ্ঘ।


গত সেপ্টেম্বরে জাতিসঙ্ঘের অভ্যন্তরীণ সূত্র এবং মিয়ানমারের ভেতরের ও বাইরের মানবাধিকারকর্মীদের দাবিকে উদ্ধৃত করে বিবিসির এক খবরে বলা হয়, বর্তমান সঙ্কট শুরু হওয়ার চার বছর আগে থেকেই কানাডীয় নাগরিক রেনেটা লক ডেসালিয়েন বিভিন্নভাবে রোহিঙ্গা এলাকা পরিদর্শনে বাধা দিয়েছেন। রোহিঙ্গা ইস্যুতে সোচ্চারমূলক প্রচারণা কাজে বাধা দিয়েছেন। তা ছাড়া যেসব কর্মকর্তা সতর্ক করতে চেয়েছেন যে, এভাবে চলতে থাকলে জাতিগত নিধন অনিবার্য, তাদেরও তিনি বিচ্ছিন্ন করে রেখেছেন। মিয়ানমারের জাতিসঙ্ঘ কার্যালয়ের প্রধান রেনেটা লক ডেসালিয়েন চাননি মানবাধিকার সংগঠনগুলো সঙ্কটপূর্ণ এলাকা পরিদর্শন করুক। স্পর্শকাতর রোহিঙ্গা এলাকায় মানবাধিকার কর্মীদের প্রবেশ প্রতিহত করেছেন তিনি।


তবে মিয়ানমারে জাতিসঙ্ঘের আবাসিক সমন্বয়কারী রেনাটা লক ডেসালিয়ানের বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা নিধনে মিয়ানমার সরকারকে সহযোগিতার অভিযোগ নাকচ করে দিয়েছেন সংস্থাটির মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস।

আরও সংবাদ