Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Mon July 16 2018 ,

জাতিসংঘের জলবায়ু সম্মেলন শেষ দিকে।। উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি নেই

Published:2017-11-14 20:15:49    

 মোঃ কামরুজ্জামান ঃ

জার্মানির বন শহরে জাতিসংঘের বার্ষিক জলবায়ু  সম্মেলন শুরু হয়েছে গত ৬ নভেম্বর। শেষ হবে ১৭ নভেম্বর। ইতোমধ্যে বিশ্বের প্রায় সকল দেশের প্রতিনিধিরা সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন। এসছেন বাংলাদেশের পরিবেশ ও বনমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু । এর আগে আসেন পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি হাছান মাহমুদ। তবে যুক্তরাষ্ট্র এবং কয়েকটি দেশের নেতিবাচক ভুমিকার কারণে এ সম্মেলন শেষ হতে চলেছে উল্লেখযোগ্য কোনো অগ্রগতি ছাড়াই। 

এবারের সম্মেলনের মুল লক্ষ্য ছিলো প্যারিস চুক্তির বাস্তবায়ন নিয়ে আলোচনা। 

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জার্মান পরিবেশমন্ত্রী বারবারা হেন্ড্রিক্স বলেন, ‘‘প্যারিস চুক্তি অপরিবর্তনীয়৷ বরং আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা দিয়ে এই চুক্তি বাস্তবায়নের চেষ্টা করতে হবে৷ আমাদের হাতে বেশি সময় বাকি নেই৷''

২০১৫ সালে প্যারিস চুক্তিতে সম্মত হয়েছিল ১৯৬টি দেশ৷ চুক্তি অনুযায়ী, এই শতাব্দীতে বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি দুই ডিগ্রি, সম্ভব হলে দেড় ডিগ্রি সেলসিয়াসের নীচে রাখার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে৷ উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে প্রতিটি দেশ নির্দিষ্ট পরিমাণ কার্বণ নিঃসরণ কমাবে বলে জানিয়েছে৷ তবে সেটি বাধ্যতামূলক কোনো বিষয় নয়৷

দ্বীপরাষ্ট্র ফিজি এবারের সম্মেলনের সভাপতি দেশ৷ তবে সেখানে পর্যাপ্ত অবকাঠামো না থাকায় জার্মানিতে ‘কনফারেন্স অফ দ্য পার্টিস' বা কপ অনুষ্ঠিত হচ্ছে৷ এবারের সম্মেলনটি এ ধরনের আয়োজনের ২৩তম সংস্করণ হওয়ায় এটি ‘কপ২৩' নামে পরিচিতি পাচ্ছে৷

ফিজির প্রধানমন্ত্রী ফ্রাংক বাইনিমারামা কপ২৩-র সভাপতি হিসেবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেয়া বক্তব্যে বলেন, ‘‘জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে আমাদের বিশ্ব চরম আবহাওয়ার শিকার হচ্ছে৷ হারিকেন, দাবদাহ, বন্যা, খরা, বরফ গলা ও কৃষিকাজে পরিবর্তন আসায় খাদ্য নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়ছে৷'' তিনি বলেন, তাঁর দেশ জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বিশ্বের অন্যতম ক্ষতিগ্রস্ত একটি দেশ৷

ফিজির মতো দেশগুলো রক্ষায় বিশ্বের অন্যান্য দেশকে তাদের অঙ্গীকার পুরোপুরি বাস্তবায়নের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী বাইনিমারামা৷ তিনি অবশ্য তাঁর বক্ততায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্যারিস চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রতে সরিয়ে নেয়ার ঘোষণার উল্লেখ করেননি৷ গত জুন মাসে ট্রাম্প তাঁর এই ইচ্ছার কথা জানান৷ বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ কার্বন নির্গমনকারী দেশ হওয়ায় ট্রাম্পের এই ঘোষণা প্যারিস চুক্তির সাফল্যের উপর কালো ছায়া ফেলেছে৷ তবে জার্মানি, ফ্রান্স এমনকি যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্য সরকার ও বড় বড় প্রতিষ্ঠান প্যারিস চুক্তি বাস্তবায়নের উপর জোর দিচ্ছে৷ 

কপ২৩ সম্মেলনে যোগ দিতে বাংলাদেশ থেকে পরিবেশ ও বন সচিব ইসতিয়াক আহমদ সহ একটি প্রতিনিধি দল এসেছে৷ তবে বরাবরের মতোর বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলের ভুমিকা দৃশ্যমান নয়।

এদিকে, সম্মেলনকে ঘিরে পরিবেশবাদী সংগঠনগুলো বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছে৷ ইতিমধ্যে তাঁরা আয়োজক দেশ জার্মানিতে কয়লা সহ জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যাপক ব্যবহারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে৷

কপ২৩ সম্মেলনে জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ, যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট ও নোবেলজয়ী আল গোর, হলিউড অভিনেতা লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও, আর্নল্ড শোয়ারৎসেনেগার সহ আরও অনেকে যোগ দেবেন৷

আরও সংবাদ