Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Wed December 19 2018 ,

  • Advertisement

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল না করলে বৃহত্তর আন্দোলন

Published:2018-10-02 00:28:40    

নিজস্ব প্রতিবেদক:  সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ জানিয়েছেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলন চলছে, চলবে। এই আইনের অপব্যবহারের বিষয়টি সম্পাদক মহোদয়রা যথাযথভাবে তুলে ধরলেও সরকার তাতে কোনও কর্ণপাত করেনি। আমরা পরিষ্কারভাবে বলতে চাই এমন চাপিয়ে দেওয়া আইন জনগণ মেনে নেবে না।’এ আইন বহাল থাকলে কোনও সাংবাদিকতা করা যাবে। আইনটি বাতিল না হওয়া পর্যন্ত সাংবাদিক সমাজ রাজপথে আন্দোলন চালিয়ে যাবে।  ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে ৬ অক্টোবর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করা হবে।

 সোমবার (০১ অক্টোবর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) এবং ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে)  আয়োজিত প্রতীকী অনশন কর্মসূচি থেকে এ ঘোষণা দেন বিএফইউজে’র একাংশের সভাপতি রুহুল আমিন গাজী। ওইদিন দেশের সবগুলো সাংবাদিক সংগঠনকেও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালনের আহ্বান জানান তিনি।

পরে দুপুর আড়াইটার দিকে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী পানি পান করিয়ে সাংবাদিকদের প্রতীকী অনশন ভাঙান।

এ সময় ড. জাফরুল্লাহ বলেন, ‘বিশ্ব ব্যাংক বলছে তারা পদ্মা সেতু ৭ হাজার কোটি টাকা দিয়ে করবে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী তা করলেন ৩৮ হাজার কোটি টাকা দিয়ে। তাহলে এ বিষয়ে সাংবাদিকরা কথা বলতে পারবে না? কথা যেন বলতে না পারে সেজন্যই তাদের মুখ বন্ধ করতে এ আইন।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীকে তার গোয়েন্দা সদস্যরা ভুল পথে পরিচালনা করছে। তারাই তাকে বলছে যে, আপনার কিছুটা জনপ্রিয়তা কমেছে, এখন আপনি এমন পিটান দেন যারা আপনার বিরুদ্ধে কথা বলে তারা আর বের হবে না। এটা তো নিশ্চয়ই সঠিক পথ নয়। তাই সরকার কুখ্যাত আইন প্রণয়ণ করে বাকশাল সরকার প্রতিষ্ঠা করতে চায়।’

বিএফইউজের সভাপতি রুহুল আমিন গাজী বলেন, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলন চলছে, চলবে। এই আইনের অপব্যবহারের বিষয়টি সম্পাদক মহোদয়রা যথাযথভাবে তুলে ধরলেও সরকার তাতে কোনও কর্ণপাত করেনি। আমরা পরিষ্কারভাবে বলতে চাই এমন চাপিয়ে দেওয়া আইন জনগণ মেনে নেবে না।’

এ আইন বহাল থাকলে কোনও সাংবাদিকতা করা যাবে না উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ‘সাংবাদিকতা হচ্ছে অনুসন্ধানি সাংবাদিকতা। কিন্তু সে অনুসন্ধানি সাংবাদিকতা না করা গেলে পত্রিকা, টিভি কিভাবে চলবে? আমরা কি শুধু পিআইবির হ্যান্ড আউট ছাপাবো? না আমরা এজন্য সাংবাদিক হইনি। তাই এ আইনে বাতিলের দাবিতে আগামী ৬ অক্টোবর প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ করবো।’

অনশন কর্মসূচিতে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবদাল আহমদ, বিএফইউজের একাংশের মহাসচিব এম আবদুল্লাহ, সহসভাপতি শাহিন হাসনাত, জাতীয় প্রেস ক্লাবের যুগ্ম- সম্পাদক ইলিয়াস খান, ডিইউজের সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক অর্থ সম্পাদক মোঃ কামরুজ্জামান প্রমুখ।

 

 

আরও সংবাদ