Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Tue September 25 2018 ,

মাছের বিরিয়ানি

Published:2013-05-31 10:29:02    

কী কী লাগবে:
১. বড় মাছ...রুই, স্যামন, হ্যাডক ইত্যাদি। ( ৪০০ গ্রাম)
২. পেঁয়াজ, কাচা মরিচ, রসুন, আদা সামান্য, ধনে পাতা
৩. ক্যাপসিকাম, রানার বীন (এক ধরণের শিম)
৪. ছোট ও বড় এলাচ - ৩/৪ টা, লং, জয়ত্রী, জয়ফল সামান্য
৫.  ফিস সস, তাবাস্কো সস, লেমন জুস, টমেটো পিউরি
৬.  চিকন বাসমতি কিংবা পোলাওর চাল
৭.  সরিষার তেল, জলপাই এর তেল


প্রণালী:
১. মাছ (হ্যাডক) কিউব করে কেটে নিন। ক্যাপসিকামও কাটুন।

 

২. এবার পেঁয়াজ, মরিচ, রসুন, আদা দিয়ে মাছ আর ক্যাপসিকাম ভালো করে মাখিয়ে নিন।


৩. কড়াই -এ সরিষার তেল দিয়ে মাখানো মাছগুলো ছেড়ে দিন। এখানে অন্য যে কোন তেল ব্যবহার করতে পারেন।


৪. এবারে ফিস সস, তাবাস্কো সস, ওরিগানো, টমেটো পিউরি, লেবুর রস ইত্যাদি। তাছাড়া লবন, একটু হলুদ, জিরা, ধনিয়া, শুকনো মরিচের গুড়া- নেড়ে পরিমানমত পানি দিয়ে ঢেকে দিন সিদ্ধ হবার জন্য।


৫. এবার ভাতের ব্যবস্থা হয়ে যাক, কী বলেন। তার আগে দু'টো জিনিস নিশ্চিত করুন - মটরশুটি আর রানার বীন( কচি শীম হলেও চলবে)।

৬. চাল ধুয়ে মিনিট ১৫ ছড়িয়ে রাখুন। এটা জরুরী তা না হলে ভালো ভাত হবে না। এবার হাড়িতে জলপাই তেল গরম করে চাল, মটরশুটি, বীন দিয়ে ৫/১০ মিনিট ভাজুন। বেশি ভাজবেন না খেয়াল রাখবেন।

৭. ওদিকে মাছ হয়েছে কিনা দেখে আসা যাক। মাঝে ঢাকনা সরিয়ে লবনটা চেখে দেখেন।


৮. ভাজা চালে তিন আঙ্গুল উচ্চতার পানি দিয়ে সিদ্ধ হতে দিন। মনে রাখবেন - পুরো সিদ্ধ কিন্তু হবে না - আধা সিদ্ধ হবে। ওদিকে মাছ সিদ্ধ হয়ে এলে একটু ঝোল ঝোল থাকতে নামিয়ে নেন। খেয়াল রাখবেন যেন মাছের উপর তেলের স্তরটা দেখতে পান। ১০/১৫ মিনিট পর ভাত আধা সিদ্ধ হয়ে গেলে আঁচ কমিয়ে দিন। হাড়িতে ভাতের একটা হালকা স্তর রেখে বাকী ভাতটা একটা বৌল -এ রেখে দিন।

৯. এক স্তর ভাত এবং আরেক স্তরে মাছ এবং মাছের ঝোল - এভাবে পরপর দিন।

১০. সবটা দেয়া শেষ হলে ঢেকে দিয়ে অল্প আঁচে আরো ১০/১৫ মিনিট রাখুন। মাঝে একবার খুব সাবধানে (অসুরের শক্তি খাটানো নিষ্প্রয়োজন! লুল ) উল্টিয়ে পাল্টিয়ে দিন।
 

অবশেষে মাছের বিরিয়ানি রেডী। এবার পরিবেশনের পালা।

 


বাংলাসংবাদ২৪/এনডি/বিএইচ