Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Sun August 19 2018 ,

সংসদ অভিমুখী বিএনপি : প্রস্তাব ‘তত্ত্বাবধায়ক’

Published:2013-06-03 09:58:43    

ঢাকা: ‘তত্ত্বাবধায়ক’ ফিরিয়ে আনার দাবিতে মুলতবি প্রস্তাব জমা দিয়েছে বিএনপি। তারই প্রেক্ষিতে আজ সংসদে যোগ দেয়ার কথা রয়েছে প্রধান বিরোধীদলটির।

নির্বাচন নিয়ে সংসদে প্রস্তাব তুলতে সরকারের আহ্বান নাকচ করা হলেও গত ২২ মে সংসদ সচিবালয়ে এই প্রস্তাব জমা দেন নোয়াখালী-১ আসনের বিএনপি'র সংসদ সদস্য এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন।

একই সাথে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধসহ সাম্প্রতিক বিভিন্ন ইস্যুতে আলোচনার জন্য ২৪টি নোটিশ জমা দিয়েছেন বিএনপির সংসদ সদস্যরা।

কার্যপ্রণালী বিধির ৬২ বিধিতে দেয়া ওই নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে, “সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচনের স্বার্থে কেয়ারটেকার সরকার পদ্ধতি পুনর্বহাল করা হোক।”

মাহবুব উদ্দিন খোকন বাংলাসংবাদকে জানিয়েছেন, “আওয়ামী লীগ বলছে সংসদে এসে আলোচনা করলে সব সমস্যার সমাধান হবে। এ জন্য মুলতবি প্রস্তাব জমা দিয়েছি, যাতে আলোচনা করা যায়।”

সংবিধান থেকে নির্দলীয় সরকার পদ্ধতি বাতিলের পর থেকে বিএনপি নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকার পদ্ধতি পূণর্বহালের দাবি জানিয়ে আসছে। অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রীসহ সরকারি দলের নেতারা বলে আসছেন, কোনো প্রস্তাব থাকলে তা সংসদে দিতে হবে।

আজ বিকেল সাড়ে পাঁচটায় জাতীয় সংসদের ১৮তম অধিবেশন শুরু হচ্ছে, যা সরকারের চলতি মেয়াদের শেষ বাজেট অধিবেশন। সদস্য পদ টিকিয়ে রাখতে হলে বিএনপির সাংসদের এই অধিবেশনে যোগ দিতে হবে। এরই মধ্যে বিএনপি ঘোষণা দিয়েছে তারা এ অধিবেশনে যোগ দেবে।

প্রধান দু'দলের কথা চালাচালির মধ্যেই রোববার স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী বিএনপি সাংসদদের পুরো সময় থাকার আহ্বান জানিয়ে প্রস্তাব বিবেচনার আশ্বাস দিয়েছেন।

তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা পুর্নবহালে বেসরকারি বিল উত্থাপন কেন করা হয়নি- জানতে চাইলে খোকন বলেন, “বিল উত্থাপন করলে সেটি সংখ্যগরিষ্ঠতার জোরে নাকচ হয়ে যাবে। তখন আওয়ামী লীগ বলবে সংসদ বিল নাকচ করেছে। এজন্য বিল উত্থাপন করছি না।”

জাতীয় সংসদে কার্যপ্রণালি বিধির ৬২ বিধিতে মুলতবি প্রস্তাবের বিষয়ে বলা রয়েছে। জরুরি ও জনগুরুত্বপুর্ণ বিবেচনায় সংসদের যেকোনো সদস্য দিনের অন্য কাজ মুলতবি রেখে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনার প্রস্তাব রাখতে পারেন। তবে মুলতবি প্রস্তাব গ্রহণের এখতিয়ার স্পিকারের। সংসদীয় রীতি অনুযায়ী এক্ষেত্রে সংসদ নেতার সম্মতিও গুরুত্বপূর্ণ।

বাংলাদেশে সংসদীয় গণতন্ত্র পুনর্প্রবর্তনের পর প্রায় ১১ হাজার মুলতবি প্রস্তাবের মধ্যে গ্রহণ হয়েছে মাত্র চারটি। আর এর সবগুলোই পঞ্চম সংসদে।

উল্লেখ্য, বর্তমান সংসদে এখন পর্যন্ত ৩৭০ কার্যদিবসের মধ্যে ৩১৬ কার্যদিবসই বিএনপি সংসদের বাহিরে থেকেছে। এর আগে পঞ্চম সংসদে ৪০০ কার্যদিবসের মধ্যে বিরোধীদলে থাকা আওয়ামী লীগ ১৩৫ কার্যদিবস সংসদ বর্জন করে। সপ্তম সংসদে ৪০০ কার্যদিবসের মধ্যে বিএনপি বর্জন করে ১৬৩দিন। আষ্টম সংসদে ৩৭৩ কার্যদিবসের মধ্য আওয়ামী লীগ বর্জন করে ২২৩দিন।
প্রসঙ্গত, বিরোধী দলের সংসদ বর্জন গণতন্ত্রে মহামারি আকার ধারন করেছে। প্রেক্ষিতে টিআইবিসহ গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন দপ্তর আইন করে সংসদ বর্জন বন্ধ করার দাবী জানায়।  

বাংলাসংবাদ২৪/এমএস

আরও সংবাদ