Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Mon September 24 2018 ,

ঘাটাইলে কলেজ ছাত্রী ধর্ষণের ভিডিও ধারণ

Published:2013-06-09 20:49:05    

ধর্ষকের বাড়িতে ক্ষুব্দ জনতার আগুন
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি : টাঙ্গাইলের ঘাটাইল উপজেলার প্রত্যন্ত পাহাড়ি এলাকা ফুলমালিরচালা গ্রামের এক কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ করে তার দৃশ্য ভিডিওতে ধারণ করে মোবাইল ফোনে ছড়িয়ে দেবার ঘটনায় এলাকায় বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে।
ধর্ষণের শিকার মেয়েটি সখীপুর উপজেলার বড় চওনা কুতুবপুর কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী বলে জানা যায়।

রোববার ভোররাতে বিক্ষুব্দ জনতা ধর্ষক ও ভিডিও চিত্র ধারণকারীর বাড়ি আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হলেও, এখন পর্যন্ত কোন আসামীকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। ধর্ষক মুকুল ও ভিডিওচিত্র ধারণকারী নুরুল ইসলাম স্থানীয় যুব লীগের সক্রিয় কর্মী বলে দলীয় সূত্রে জানা যায়।

এলাকাবাসি জানায়, গত ৩০মে কলেজ থেকে ফেরার পথে কলেজ ছাত্রীকে ফুলমালির চালা গ্রামের মুকুল (৩২) ও নুরুল ইসলাম (২৮) জোর করে মোটরসাইকেলে তুলে নেয়। তারা ছাত্রীটিকে পাশ্ববর্তী কামালপুর গ্রামের গজারি বনের ভিতর জনৈক আ. খালেকের ছাপড়া ঘরে নিয়ে যায়। সেখানে মুকুল ছাত্রীকে ধর্ষণ করে। এ সময় মুকুল সহযোগী স্টুডিও ব্যবসায়ী নুরুল ইসলাম ধর্ষণের ভিডিও চিত্র ধারণ করে। ছাত্রীটি লোকলজ্জার ভয়ে ঘটনাটি গোপন রাখে।

এদিকে ধর্ষক মুকুল ধর্ষণের ভিডিওচিত্র মোবাইল ফোনে এলাকায় ছড়িয়ে দিলে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়। পরে ৩ জুন ধর্ষিতা ছাত্রীটি বাদী হয়ে মুকুল ও নুরুলইসলামকে আসামী করে ঘাটাইল থানায় ধর্ষণের মামলা করে। মামলা দায়েরের এক সপ্তাহের মধ্যে কোন আসামী গ্রেপ্তার না হওয়ায় এলাকাবাসী বিক্ষুব্দ হয়ে ওঠে।
তারই প্রতিবাদে গত শনিবার ধর্ষকদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে স্থানীয় স্কুল কলেজ ও মাদ্রাসায় তালা ঝুলিয়ে দেয় এলাকাবাসী।

স্থানীয় সংসদ সদস্য আমানুর রহমান খান রানা ঘটনাস্থলে ছুটে যান এবং তিনি অবিলম্বে এই নরপশুকে গ্রেপ্তার করার জন্য স্থানীয় পুলিশকে নির্দেশ দেন।
বিক্ষুব্দ জনতা এতেও আস্বস্ত না হয়ে আজ ভোররাতে ধর্ষক মুকুলের ও ভিডিও চিত্র ধারণকারী নুরুল ইসলামের বাড়িতে আগুন দেয়। এতে বাড়ি দুটির পাঁচটি ঘর আসবাবপত্রসহ ভষ্মিভূত হয়।

ধলাপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ৯নং ওয়ার্ডের সভাপতি শাহ আলম তালুকদার জানান, দলের পরিচয় দিয়ে মুকুল মূলত নানা অপকর্ম করে বেড়ায়। তার বিরুদ্ধে গত দুই বছরে যাত্রার নায়িকাসহ দুটি ধর্ষণের মামলা হয়।

ঘাটাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) ফজলুল কবির বলেন, মামলার পর থেকে আসামীরা গা ঢাকা দিয়েছে। সম্ভাব্য সব চেষ্টা করা হচ্ছে।
বাড়িতে আগুন দেয়ার ঘটনা স্বীকার করে তিনি বলেন, এলাকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করার জন্য ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হযেছে।

ফুলমালির চালা গ্রামের বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র জিয়াউল হক বলেন, মুকুল যুব লীগের প্রভাবশালী নেতা সে সন্ত্রাস, চাঁদাবাজিসহ নানা অপকর্ম করে বেড়ায়।

মুকুলের মা রোকেয়া বেগম(৫২) বলেন, আমার পোলায় যে অন্যায় করেছে তাতে আল্লাহ বেজার হইয়া ঘর পোড়াইয়া উচিৎ বিচার করছে।




বাংলাসংবাদ২৪/কালাম/একে কাব্য

আরও সংবাদ