Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Fri July 20 2018 ,

ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু সাফারী পার্কের ৩টি বঘের বাচ্ছা এখন উন্মুক্ত

Published:2013-06-17 18:37:05    

চকরিয়া(কক্সবাজার) প্রতিনিধি : কক্সবাজারের চকরিয়ায় ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে র‌্যাব কর্তৃক পাচারকারীদের থেকে ঢাকায় উদ্ধার করা সুন্দরবনের সেই তিনটি বাঘ জয়, জুঁই ও জ্যোতি এখন উম্মুক্ত।
ইতোপুর্বে বাচ্চাগুলো বন্যপ্রাণী হাসপাতালের কোয়ারেন্টাইন শেডের ছোট্ট খাঁচায়  দীর্ঘদিন ধরে আবদ্ধ ছিল।

বর্তমানে বাচ্চা গুলোর বয়স ১৪ মাস এবং ওজন ৪৫ থেকে ৫০ কেজি। এসব  বাচ্চা বড় হয়ে উঠার পাশাপাশি পার্কে আগত দর্শনার্থীদেরও নজর কাড়ছে। এবং বাঘ শাবককে দেখতে ভিড় করছে ছোট-বড় সকলেই।

সাফারি পার্কের কর্মকর্তা মাজহারুল ইসলাম চৌধুরী জানান, গত বছরের ১১ জুন ঢাকার শ্যামলীর একটি বাসা থেকে এ তিনটি বাঘের বাচ্চা উদ্ধার করে ঢাকা র‌্যাব-২। বন্যপ্রাণী পাচারকারী একটি দল সুন্দরবনে সাতক্ষীরা থেকে বাঘের বাচ্চাগুলো পাচারের জন্য ঢাকায় নিয়ে আসে বলে জানা তিনি।

সাফারি পার্ক সূত্র জানায়, এরপর বাঘের বাচ্চা ৩টি লালন-পালনের জন্য ঢাকার জাতীয় উদ্ভিদ উদ্যানে (বোটানিক্যাল গার্ডেন) টিস্যু কালচার ল্যাবে বাচ্চা গুলোর সার্বিক তদারকি করেন বঙ্গবন্ধু সাফারী পার্কের তৎকালীন ভেটেরিনারী সার্জন ডা. জাহেদ মো. মালেকুর রহমান।

সাফারি পার্কের সহকারী ভেটেরিনারী সার্জন মোস্তাফিজুর রহমান জানান, বোটানিক্যাল গার্ডেনে সাড়ে ৩ মাস বাঘের তিনটি বাচ্চাকে থাইল্যান্ড থেকে আনা দুধ খাওয়ানো হয়। পরে কিছুদিন দুধের পাশাপাশি একবেলা করে মুরগির মাংসও খেতে দেয়া হয়েছিল।

ডুলহাজারা বঙ্গবন্ধু সাফারী পার্কের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এবিএম জসিম উদ্দিন জানান, এ তিনটি বাঘের বাচ্চা নতুন অতিথি হিসেবে পার্কের বাঘের বেষ্টনীতে স্থায়ীভাবে স্থান পাওয়ায় সকলেই খুশি। তাই এখন থেকে পার্কে আগত দর্শনার্থীদের হতাশ হয়ে ফিরতে হবেনা।
এই ৩টি বাঘের বাচ্চার মধ্যে একটি পুরুষ বাঘ রয়েছে। ফলে আগের মতো আর বিপরীত লিঙ্গের সমস্যাও থাকবে না বলে জানান তিনি।


বাংলাসংবাদ২৪/হাবিব/একে কাব্য

আরও সংবাদ