Widget by:Baiozid khan
শিরোনাম:

ঢাকা Mon July 16 2018 ,

সাদা মনের মানুষ

Published:2013-07-17 16:59:52    

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : সেই হয় কীর্তিয়মান, যার আত্মমানবতার সেবায় রয়েছে অবদান। এমন একজন কিংবদন্তী সাদা মনের মানুষ ও কৃর্তি পুরুষ মুসলিম উদ্দিন। গাইবান্ধা জেলার সাদুল্যাপুর উপজেলার কামারপাড়া ইউনিয়নের হিয়ালী গ্রামে জন্ম গ্রহন করেন।

১৯৫৬ খ্রিষ্টাব্দের ৩ মার্চ এক কৃষক পরিবারে জন্ম গ্রহণকারী এ মানব হিতৈষীর পিতার নাম আব্বাস আলী কবিরাজ, মাতার নাম মতিজান বেগম। লেখাপড়া করার তেমন সুযোগ হয়নি তার। কুপতলা ইসলামিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ৫ম শ্রেণী পাশ করে ভর্তি হন কুপতলা এ কিউ উচ্চ বিদ্যালয়ে।

এখান থেকে ১৯৭০ খ্রিষ্টাব্দে তিনি ইষ্ট পাকিস্থান রাইফেল্স(ইপিআর) এর সিপাহী পদে যোগদান করেন। প্রশিক্ষন শেষে বাংলাদেশের বিভিন্ন সিমান্ত ও সদর দপ্তরে দীর্ঘ ২৭ বছর চাকুরী করেন। ২০০৩ খ্রিষ্টাব্দের ৯ সেপ্টেম্বর চাকুরী থেকে স্বেচ্ছায় অবসর গ্রহন করেন। অবসর নিয়ে বাড়িতে এসে তিনি কৃষিতে মনোনিবেশ করেন। আদর্শ কৃষক হিসেবে তিনি দু’বার জাতীয় পর্যায়ে পুরুস্কৃত হয়েছেন।

মুসলিম উদ্দিন শুধু কৃষি ক্ষেত্রে নয়, একজন সাদা মনের মানুষ হিসেবে আত্মমানবতার সেবায় কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি এলাকার হতদরিদ্র মানুষের জন্য কবর স্থান, মসজিদের জন্য জমি দানসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সাধ্যমত আর্থিক সাহায্য সহযোগীতা করে আসছেন। এছাড়াও গরিব পরিবারের বিয়ে-সাদীসহ মৃত ব্যাক্তির দাফন-কাফন কাজে আর্থিক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়ে কৃর্তিত্ব অর্জন করে আসছেন।

চাকুরী জীবনেও তিনি ন্যায়ের কাছে ছিলেন বলিয়ান। অত্যান্ত সাদা মনের মানুষ এই মুসলিম উদ্দিন। তার কাছ থেকে কেউ কখনও খালি হাতে ফিরে যায়নি। আত্মমানবতার সেবায় সব সময় নিয়োজিত থাকায় তার প্রতি মানুষের রয়েছে অফুরন্ত শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা। তিনি আত্মমানবতার সেবার মধ্যদিয়ে বেঁচে থাকতে চান এবং থাকবেন অনন্তকাল।

তিনি বলেন, মানব জীবন শুধু সুখের লীলাভুমি নয়, সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্নার মধ্যে সমন্নয় সাধনেই জীবন। মানুষের দুঃখের সাথে একাত্মা হয়ে জীবন কাটাতে পারলে মানব জন্ম স্বার্থক হয়। শুধু সুখে কাল যাপন না করে ব্যথিত মানবতার সেবায় আত্মনিয়োগ করাতেই জীবনের স্বার্থকতা। পরের দুঃখে কাঁদার চেয়ে মহতের দুঃখে কাঁদলেই সে কান্না স্বার্থক হয়।


বাংলাসংবাদ২৪/ময়নুল হুদা/একে কাব্য

আরও সংবাদ